‘মানবপাচারের’ শিকার ৬৫ বাংলাদেশি মালয়েশিয়ায় উদ্ধার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: মালয়েশিয়ায় ৬৫ বাংলাদেশিকে উদ্ধার করেছে দেশটির পুলিশ। এরা মানবপাচারের শিকার হয়েছেন বলে ধারণা করছেন কর্মকর্তারা। এ ঘটনায় দুই মালয়েশিয়ানকে আটক করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার বান্দার বারু নিলাই এলাকায় অভিযানকালে একটি বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ কোম্পানির আবাস থেকে এই বাংলাদেশিদের উদ্ধার করা হয়।

বুধবার মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক মুস্তাফার আলী সাংবাদিকদের জানান, ওই অভিযানে অভিযানে বিভিন্ন দেশের ৩৭৭টি জাল পাসপোর্ট ও অনেক ভুয়া কাগজপত্র জব্দ করা হয়েছে।

মুস্তাফার আলী বলেন, প্রাথমিক তদন্ত শেষে আমরা মনে করছি এই শ্রমিকরা নিয়োগদাতা কোম্পানিটির প্রতারণার শিকার হয়েছেন। তাদের ৩-৫ মাস কোনো বেতন দেওয়া হচ্ছে না। উল্টো চলার জন্য ৩০০-৫০০ মালয়েশিয়ান রিংগিত ঋণ করতে হচ্ছে তাদের।

মালয়েশিয়ায় বৈধ নথিপত্র ছাড়া অবস্থানরত বিদেশিদের ধরতে দেশটির কর্তৃপক্ষের সাঁড়াশি অভিযান শুরুর কয়েক দিন পর এই বাংলাদেশিদের উদ্ধারের খবর মিললো। বৈধ নথিপত্রহীন বিদেশি শ্রমিকদের স্বদেশে ফেরত যেতে বেঁধে দেওয়া আলটিমেটাম গত ৩০ আগস্ট শেষ হওয়ার পর ১ সেপ্টেম্বর থেকে অভিযানে নামে অভিবাসন বিভাগ। তার আগে অবশ্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করে অবৈধ শ্রমিকদের আট হাজার টাকা শোধ করে স্বদেশে ফেরত যাওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়।

অভিযান শুরুর পরদিন ২ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, বিভিন্ন এলাকায় অভিযানে বাংলাদেশিসহ ৫ শতাধিক অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। আর ৫ সেপ্টেম্বর জানানো হয়, জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ৩০ হাজারের বেশি অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে, যাদের মধ্যে প্রায় সাত হাজার বাংলাদেশিও রয়েছেন।

মঙ্গলবার মানবপাচারকারী সন্দেহে আটক দু’জনের পরিচয় প্রকাশ না করলেও মুস্তাফার আলী বলেন, তারা ওই নিয়োগদাতা কোম্পানির পরিচালক। বিদেশি শ্রমিক আনার জন্য তারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ভুয়া কাগজপত্র জমা দিয়েছিল। তাদের সহযোগী কোম্পানিটির আরেক পরিচালককে খুঁজছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম বলছে, মালয়েশিয়ায় ১০ লাখের মতো বাংলাদেশি শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন। যাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকই বৈধ নথিপত্র ছাড়া।

শেয়ার করুন