মাধবপুরে দুই সন্তানসহ মায়ের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:: হবিগঞ্জের মাধবপুরে দুই সন্তানসহ মায়ের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে।

শনিবার দিবাগত রাতে নিহত হাদিসার বাবা শামীম মিয়া বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় হাদিসার স্বামী মুজিবুর রহমান, শ্বাশুরীসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনকে আসামী করা হয়।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চন্দন কুমার মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মাধবপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এএসএম রাজু আহমেদ জানান, এই হত্যাকাণ্ডকে পরিকল্পিত এবং পারিবারিক কলহের জের ধরে হয়েছে বলে প্ধারণা করছে পুলিশ। বিশেষজ্ঞ মতামত ছাড়া এর বেশি কিছু বলা যাবে না। তিনি স্বল্প সময়ের মধ্যে ঘটনার রহস্য উদঘাটনে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তদন্তের স্বার্থে আসামিদের নাম বলা যাবে না বলেও জানান তিনি।

মরদেহগুলোর সুরতহাল এবং ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে সন্তানদের পাশাপাশি হাদিসাকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে প্রমাণ পাওয়ার পর হাদিসার স্বামী মুজিবুর রহমান মজিদের প্রতি সন্দেহ আরো ঘনিভূত হচ্ছে। এলাকাবাসী ও স্বজনদের সন্দেহের তীর স্বামীর দিকেই। ঘটনার পর থেকে মুজিবুর রহমান পলাতক থাকায় এ সন্দেহ আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে। পুলিশ বলছে স্বামীকে গ্রেফতার করতে পারলেই সব খোলাসা হবে।

গত শুক্রবার রাত ১১টার দিকে মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের নিজনগর গ্রামে ব্যবসায়ী মুজিবুর রহমান মজিদের ঘরে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে আশপাশের লোকজন এগিয়ে ঘরের দরজা বন্ধ দেখতে পান। পরে ডাকাডাকি করলেও কারো কোনো সাড়া মেলেনি। একপর্যায়ে তারা উঁকি দিয়ে দেখতে পান ঘরের ভেতর গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় হাদিছা বেগমের মরদেহ পড়ে রয়েছে। আর খাটে তার আড়াই বছর বয়সী শিশু মিম আক্তারের গলা কাটা মরদেহ পড়ে রয়েছে।

পরে স্থানীয় লোকজন মাধবপুর থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহগুলো উদ্ধার করে।

শেয়ার করুন