দক্ষিণ কোরিয়ায় টয়লেটে গোপন ক্যামেরা ধরতে অভিযান

ডেস্ক রিপোার্ট:: দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে টয়লেটে এবং পোশাক পরিবর্তনের ঘরে গোপন ক্যামেরা ধরার অভিযান চালানো হচ্ছে। দেশটিতে এই গোপন ক্যামেরা একটি ভয়াবহ আতঙ্কে রূপ নিয়েছে। লুকিয়ে রাখা এসব ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিও অনুমতিবিহীনভাবে অনলাইনে ‘স্পাই ক্যাম পর্ন’ নামে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন পর্নোগ্রাফির ওয়েবসাইটে।

গোপন ক্যামেরার শিকার হচ্ছেন প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রতিবাদেও নেমেছে জনগণ। বিশেষ করে নারীরা এর অন্যতম শিকার। এই বছরের শুরুর দিকে হাজার হাজার নারীরা এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছিলেন। তারা গোপন ক্যামেরা ব্যবহারের বিরুদ্ধে সেই বিক্ষোভে লিখেছিলেন ‘আমার জীবন তোমার পর্ন নয়’।

দেশটির অ্যাকটিভিস্টরা বলছে মেয়েরা সব সময় একটা আতঙ্কের মধ্যে থাকেন, কথন তাদের অনুমতি ছাড়ায় ছবি তোলা হবে অথবা ভিডিও করা হবে। উল্লেখ্য, দক্ষিণ কোরিয়ায় ‘স্পাই ক্যাম পর্নের’ শিকার ৮০ শতাংশ নারী।

এই বছরের শুরুর দিকে হাজার হাজার নারী গোপন ক্যামেরা ব্যবহারের বিরুদ্ধে ‘আমার জীবন তোমার পর্ন নয়’ স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ করেন
সিউলের পাবলিক টয়লেটগুলো এতদিন মাসে একবার চেক করা হত সেখানে কোন গোপন ক্যামেরা আছে কিনা সেটা পরীক্ষা করে দেখার জন্য। কিন্তু এখন থেকে টয়লেটের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তি প্রতিদিন এই কাজটি করবেন।

গত বছর গোপন ক্যামেরা লাগানোর সাথে জড়িত সন্দেহে ৫৪০০ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে দক্ষিণ কোরিয়া পুলিশ। বর্তমানে তাদের মধ্যে দুই শতাংশ এর কম ব্যক্তি জেলখানায় রয়েছে। বর্তমানে দেশটিতে এই অপরাধের শাস্তি এক বছরের জেল কিংবা ১০ মিলিয়ন স্থানীয় মুদ্রা, যার পরিমাণ হলো ৮,৯০০ মার্কিন ডলার।

গোপন ক্যামেরার শিকার হয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় অনেক নারী আত্মহত্যার পথও বেছে নিয়েছেন। -বিবিসি বাংলা

শেয়ার করুন