এম সাইফুর রহমানের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ, নানা কর্মসূচি

সিলেটের সকাল ডেস্ক:: সিলেটের রাজনীতির ইতিহাসে অমর ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, বিএনপির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমানের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বুধবার। বরেণ্য রাজনীতিবিদ ও খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদ এম সাইফুর রহমান ২০০৯ সালের এই দিনে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেন।

বৃহত্তর সিলেটের এ কৃতিসন্তান তাঁর জীবদ্দশায় সিলেটের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখে গেছেন। জাতীয় সংসদে ১২ বার বাজেট পেশ করে জাতীয় রাজনীতির ইতিহাসে তিনি অমর হয়ে আছেন। তাঁর মৃত্যুর ৯ বছর পেরিয়ে গেলেও সিলেটের মানুষ এখনও তাঁর অভাব অনুভব করেন। সিলেটের অন্তঃপ্রাণ এ কৃতী ব্যক্তিত্ব ১৯৩২ সালের ৬ই অক্টোবর, মৌলভীবাজারের বাহারমর্দন গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী ছিলেন তিনি।

রাজনীতিতে সম্পৃক্ত না থাকলেও ১৯৫২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে ভাষা আন্দোলনে অংশ নেয়ায় তাকে জেল খাটতে হয়। স্বাধীনতা উত্তরকালে জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভায় বাণিজ্য উপদেষ্টা হিসেবে রাজনীতিতে তাঁর অভিষেক ঘটে। পরবর্তীতে বাণিজ্য ও অর্থমন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান তিনি। জিয়াউর রহমানের পুরো সময় তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার পতনের পর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে এম সাইফুর রহমান আবারো অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ১৯৯৬ সালে তিনি মৌলভীবাজার-৩ আসন থেকে নির্বাচিত হলেও নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হলে তিনি বিরোধী দলীয় সাংসদ হন।

২০০১ সালে তিনি সিলেট-১ ও মৌলভীবাজার-৩ আসনে যুগপৎ নির্বাচিত হন। এসময় তিনি মৌলভীবাজারের আসনটি ছেড়ে দিয়ে জাতীয় সংসদের মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনের প্রতিনিধিত্ব করেন। ২০০১ সালের চার দলীয় জোট সরকারের মন্ত্রিসভায় তিনি আবারো অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ও মন্ত্রিভার সিনিয়র মন্ত্রী হিসেবে তিনি দেশের অর্থনীতি ও উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। এসময় তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে অবদান রেখে স্থানীয়দের ব্যাপক সহানুভূতি অর্জনে সক্ষম হন। তিনি সিলেটের রাজনৈতিক ইতিহাসে সবচেয়ে সফল উন্নয়ন যজ্ঞের সূচনা করেন বলে জনশ্রুতি আছে। ক্ষমতায় থাকাকালে সিলেটের ব্যাপক উন্নয়নে তিনি দেশের অন্যান্য জেলা ও সরকারের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সমালোচনার মুখে পড়েন। এম সাইফুর রহমানের আপসহীন উন্নয়ন কর্মকান্ডে সিলেটের আপামর মানুষের মধ্যে ব্যাপক সহানুভূতি জন্ম দেয়। একনেকের বিকল্প চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি সিলেটের অসংখ্য প্রকল্প একনেকে পাশ করিয়ে সিলেটবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। তাঁর সহজসরল অভিব্যক্তি ও সিলেটের আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলায় সর্বস্তরের মানুষ তাকে আপনজন হিসেবে গ্রহণ করে নিয়েছিল। বিরল কৃতিত্বের অধিকারী এম সাইফুর রহমান ছিলেন বিলেতে চাটার্ড একাউন্টেন্ট।

২০০৯ সালের ৫ সেপ্টেম্বর সিলেট সফর শেষে ঢাকায় ফেরার পথে বেলা পৌনে ৩টায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের খড়িয়ারা নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তাকে বহনকারী গাড়িটি রাস্তা থেকে ছিটকে পাশের খাদে পড়ে পানিতে তলিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তাঁর আকস্মিক মৃত্যুতে বৃহত্তর সিলেটসহ পুরো দেশে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার শেষ ইচ্ছানুযায়ী বাহারমর্দন গ্রামে তাকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়।

এ ক্ষণজন্মা পুরুষের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মরহুমের পরিবার ও দলের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সিলেট ও মৌলভীবাজারে বিএনপিসহ অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, মৌলভীবাজারের বাহারমর্দন গ্রামে মরহুমের কবর জিয়ারত, দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা, শিরনি বিতরণ ইত্যাদি। ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এম.সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদ ও মরহুমের পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁর গ্রামের বাড়িতে মরহুমের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ, কবর জিয়ারত, কোরানে খতম, মিলাদ, দোয়া, শিরনী বিতরণ ও স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে শহরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফলজ বৃক্ষ রোপণের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

এদিকে, এ উপলক্ষে সিলেট জেলা বিএনপির উদ্যোগে আজ বুধবার বাদ আসর হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার মসজিদ প্রাঙ্গণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীকে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে অংশগ্রহণের আনুরোধ জানিয়েছেন জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল। এছাড়া, বাদ মাগরিব হযরত শাহজালাল (রহ:) দরগাহ মসজিদে সিলেট জেলা ও মহানগর জাসাসের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

এদিকে, এম সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদ, গোলাপগঞ্জ উপজেলা শাখার উদ্যোগে গোলাপগঞ্জ চৌমহনী মসজিদে আজ বাদ আসর দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। এসব কর্মসূচিতে সর্বস্তরের নেতাকর্মীকে উপস্থিত থাকতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন