আশুরা দিবসে সিলেট মহানগর জামায়াতের আলোচনা সভা

সিলেটের সকাল ডেস্ক:: সিলেট মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমীর মো. ফখরুল ইসলাম বলেছেন, ১০ মহররম পবিত্র আশুরা মুসলিম মিল্লাতের জন্য একটি শোকের দিন। বেদনা বিদুর দিনটি মুসলিম জাহানকে বারবার শোকাহত করে। সেদিন কারবালার ময়দানে ইয়াজিদ বাহিনীর বর্বরতা ও মানবতার মুক্তিদুত মহানবী (সা:) এর দৌহিত্র ইমাম হোসেন-এর শাহাদাতের ইতিহাস মুসলমানদের জন্য ত্যাগের এক অনন্য নজির স্থাপন করে। শুধৃু তাই নয়, মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল আল-আমীন ১০ ই মহহরম দুনিয়া সৃষ্টি করেন। ১০ই মহররম হযরত আদম (আঃ) কে দুনিয়াতে প্রেরণ করেন। ১০ ই মহররম হযরত ইব্রাহিম (আঃ)কে নমরুদের অগ্নিকান্ড রক্ষা পান। ১০ ই মহররম মুসা (আঃ) কে ধ্বংস গ্রহণ করতে যাওয়া ফেরাউনকে নীল নদে ডুবিয়ে হত্যা করা হয়। হযরত নুহ (আঃ) এর সময় মহাপ্লাবনে পাপিষ্টদের ধ্বংস এবং নুহ (আঃ) এর অনুসারীদেও রক্ষা হয় ১০ই মহররম। হযরত ইউনুস (আঃ) কে মাছের পেট থেকে উদ্ধার, হযরত আইয়ুব (আঃ) এর রোগমুক্তি, ৪০ বছর পর পুত্র ইউসুফ (আঃ) কে পিতা হযরত ইয়াকুব (আঃ) ফিরে পেয়েছিলেন এই ১০ই মহররম। আশুরা দিবস ১০ই মহররমের সাথে মুসলিম মিল্লাতে অনেক ঘটনা প্রবাহ এবং ইতিহাস জড়িত রয়েছে। প্রতিটি ইতিহাস থেকে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের জন্য রয়েছে সুমহান শিক্ষা।

তিনি বলেন- আজো দুনিয়ার বিভিন্ন দেশে ইয়াজীদি শাসন ও বর্বরতার অসংখ্য নজির স্থাপন হতে চলেছে। ভবিষ্যতেও এর ধারা অব্যাহত থাকবে। যে কোন পরিস্থিতিতে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদেরকে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। আশুরা আমাদের শিক্ষা দেয় ইসলামের ত্যাগ-তিতিক্ষার ইতিহাস। যুগে যুগে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় যারা কাজ করেছেন তাদের উপরে নেমেছে সীমাহিন জুলুম-নির্যাতন। বর্তমানেও সারা দুনিয়ায় ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য যারা সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে তাদের উপরে জুলুম নিপীড়ন অব্যাহত আছে। নির্যাতনের স্টিম রোলার চালানো হচ্ছে। পবিত্র আশুরা প্রতিটি মুসলমানকে ত্যাগের মাধ্যমে দ্বীন প্রতিষ্ঠার কঠিন ময়দানে ঠিকে থাকার শিক্ষা দেয়।

শুক্রবার পবিত্র আশুরা দিবস উপলক্ষে সিলেট মহানগর জামায়াত আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।

মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা সোহেল আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মো: শাহজাহান আলী, জামায়াত নেতা মাওলানা আব্দুল মুকিত, হাফিজ মশাহিদ আহমদ, রফিকুল ইসলাম ও এখলাছুর রহমান প্রমুখ।

শেয়ার করুন