।। কৃষাণ ।। মো. মিজাহারুল ইসলাম

সকাল বেলা ছুটছে কৃষাণ
লাঙল নিয়ে হাতে,
পেরিয়ে নদী,যাচ্ছে উজান,
দু’য়েক গরু সাথে।

আপন মনে বলবে কথা
করবে জমি চাষ,
রোপা,আমন বুনবে সেথা,
ফলবে বার মাস।

ব্যস্ত কৃষাণ ফসল বুনে
দেখছে পশু,পাখি,
গান ধরেছে সুরের সনে,
বন্ধ করে আঁখি।

ক্লান্ত কৃষাণ ভাবলো যখন
একটু জিরোই তবে,
গাছের ছায়ায় বসল তখন,
মাঝি মল্লা সবে।

মাঝির সনে গল্প চলে
দিন গড়িয়ে দুপুর,
গল্প শেষে অল্প হেলে,
খানিক ঘুমে বিভোর।

উঠল জেগে ঘুমের চোখে
রওনা দিল বাড়ি,
সাঁতার দিল নদীর বুকে,
আল্লাহ নবী স্মরি।

পৌঁছে বাড়ি,গোয়ালে তারি
গরু দুটি বেধে,
দেখেন বিবি ধরছে আড়ি,
কথা কয়না জেদে।

তোমার কেন দেরি এত?
বলছে বিবি রেগে,
বোঝো নাতো কর্ম কতো!
সময় আরো লাগে।

মান অভিমান পাশে রাখি
বসল খেতে রাতে,
তরকারি কি? আনো দেখি!
লবণ কেন পাতে?

কৃষাণ,তৃপ্তি ভরেই খেলো
লবণ দিয়ে ভাতে,
সেই আশাতে নিদ্রা গেল,
উঠবে সে প্রভাতে।

এভাবেই সে-
উঠছে সকাল, যাচ্ছে ক্ষেতে,
ঘুরছে চক্র বাকে,
হচ্ছে বিকাল, সুফল পেতে,
ভাগ্য সেতো ফিকে!

তাং – ৮/৯/১৮ খ্রীস্টাব্দ।

শেয়ার করুন