শাবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত

শাবি প্রতিনিধি :: শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশের মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস পালিত হয়েছে। দিবসের কর্মসূচির মধ্য ছিল কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলাচোনা সভা, দোয়া মাহফিল ও প্রার্থণা সভা।

দিবসটি উপলক্ষে বুধবার সকাল পৌনে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রশাসনিক ভবনর সামনে কালো পতাকা উত্তোলন করা হয় পরবর্তীতে ৯টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়।  এসময় কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ইলিয়াস উদ্দীন বিশ্বাস, ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক রাশেদ তালুকদার, অধ্যাপক আখতারুল ইসলাম, অধ্যাপক কবির হোসেন,অধ্যাপক হাসান জাকিরুল ইসলাম, প্রক্টর সহযাগী অধ্যাপক জহির উদ্দিন আহমেদ, রেজিস্ট্রার জনাব মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন সহ বিভিন অনুষদর ডিন, বিভাগীয় প্রধান, দপ্তর প্রধান, কর্মকর্তা ও কর্মচারী বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পর সকাল ৯টার পর থেকেই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মর্কতা-কর্মচারীদের বিভিন্ন সংগঠন, শাবি ছাত্রলীগ, শাবি প্রেসক্লাব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ। এসময় পুস্পস্তবক অর্পণের পর এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

পুস্পস্তবক পরবর্তী শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দীন আহমেদ এর উপস্থিতে একটি র্যালি বের হয়। র্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শিক্ষা ভবন “এ” এর সামনে এসে শেষ হয়।

এদিকে শোক দিবসকে কেন্দ্র করে সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মিনি অডিটরিয়ামে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন এর সঞ্চালনায় শোক দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আখতারুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দীন আহমেদ। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে কোষাধ্যক্ষ ইলিয়াস উদ্দীন বিশ্বাস আসন গ্রহণ করেন।

প্রধান অতিথি শাবি উপাচার্য ফরিদ উদ্দীন আহমেদ ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট নিহত সকলের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হলে আমাদেরকে সোনার মানুষ গড়তে হবে। এজন্য আমাদের নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ক্লাস পরীক্ষা সময় মতো নেয়ার চেষ্টা করতে হবে যাতে শিক্ষার্থীদর কোনো ক্ষতি না হয়। আমরা মুখে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কথা বলি। কিন্তু বাস্তবে নিজেদের মধ্যে হানাহানি করি। এসব করলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে না।

তিনি আরও বলেন দেশ এখন অনেক এগিয়ে গেছে। আমরা প্রায় সবক্ষেত্রেই পাকিস্তান থেকে এগিয় আছি। এটা সম্ভব হয়েছে কেবলমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে। আমাদের কর্তব্য হবে নিজেদের দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করে দেশের সাধারণ মানুষর মুখে হাসি ফোটানা। তাহলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে।

শেয়ার করুন