লন্ডনের বাঙালী পাড়ায় পার্কিং অবস্থায় ইঞ্জিন চালু রাখলে ২০ পাউন্ড জরিমানা

লন্ডন প্রতিনিধি :: পার্কিং অবস্থায় গাড়ির ইঞ্জিন চালু রাখা হলে গাড়ি চালককে ২০ পাউন্ড জরিমানা করার বিধান চালু করেছে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল। যদি ২৮ দিনের মধ্যে এই জরিমানার অর্থ পরিশোধ করা না হয়, তাহলে তা বেড়ে ৪০ পাউন্ডে উন্নীত হবে। বায়ু দূষণের মাত্রা কমিয়ে আনার লক্ষ্যে কাউন্সিলের চলমান প্রচারাভিযান হ্যাশট্যাগ ব্রিথক্লিন এর অংশ হিসেবে নতুন এই নীতি গ্রহণ করা হয়েছে।  বিশেষ করে বারার স্কুলগুলোর আশেপাশের রাস্তায় অপেক্ষমান অবস্থায় যারা গাড়ির ইঞ্জিন চালু রাখবেন, তাদের ব্যাপারে বিশেষ নজর দেয়া হবে। যানবাহনের কারণেই ৫০ ভাগেরও বেশি বায়ূ দূষণ হয়ে থাকে।

টাওয়ার হ্যামলেটসে ত্রিশোর্ধ বয়সীদের মৃত্যুর ৭.৪ শতাংশের কারণ হচ্চেছ বায়ূ দূষণ। বারার ৪০ ভাগ মানুষ যে এলাকাগুলোতে বাস করেন, সেখানকার বায়ু দূষণের মাত্রা সরকার এবং ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের বৈধ মাত্রার চেয়ে বেশি এবং এটি শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক যাদের শ্বাসজনিত সমস্যা আছে, তাদের জন্য বিশেষ ক্ষতির কারণ হচ্চেছ। কিংস কলেজের এক গবেষণায় দেখা গেছে বায়ূ দূষণের কারণে টাওয়ার হ্যামলেটসের বাচ্চচাদের লাং ক্যাপাসিটি বা শ্বাসযন্ত্রের সক্ষমতা জাতীয় গড়ের চেয়ে ১০ শতাংশ কম।

এ প্রসঙ্গে টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস বলেন, আমাদের বারার বায়ূর মান উন্নত করাটা গুরুত্বপূর্ণ অগ্রাধিকার। তাই আমরা ষ্ক্রব্রিদ ক্লিনম্ব বা বিশুদ্ধ বায়ূ গ্রহণ শীর্ষক প্রচারাভিযান শুরু করেছি। টাওয়ার হ্যামলেটসে দূষনের অন্যতম কারণ হচ্চেছ যানবাহনের ধূয়াঁ এবং বায়ূ দূষণ আমাদের শিশু কিশোরদের লাং বা শ্বাসযন্ত্রের স্বাভাবিক বৃদ্ধির ওপর এবং অসুস্থ্য বাসিন্দাদের স্বাস্থ্যের ওপর খারাপ প্রভাব ফেলছে। গাড়ি থামা অবস্থায় অথবা পার্কিং করা অবস্থায় অযথা গাড়ির ইঞ্জিন চালু না রাখতে চালকদের প্রতি বিশেষ অনুরোধ জানান মেয়র বিগস।

কেবিনেট মেম্বার ফর এয়ার কোয়ালিটি, কাউন্সিলর র‌্যাচেল ব্ল্যাক বলেন, পার্কিং অবস্থায় ইঞ্জিন চালু রাখার মানে হলো গাড়ির চারপাশকে দূষণের হট স্পটে পরিণত করা এবং এতে যেমন আশেপাশের লোকজন ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তেমনি গাড়ির ভেতরে যারা থাকেন, তাদের ওপরও প্রভাব পড়ে। তিনি বলেন, কাছাকাছি কোথাও যেতে হলে গাড়ির বদলে পায়ে হেঁেট কিংবা সাইকেলে যাওয়া যেমন আমাদের নিজেদের জন্য ভালো, তেমনি পরিবেশের জন্যও ভালো। উল্লেখ্য, কাউন্সিলর অফিসাররা পার্কিংকৃত গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করার অনুরোধ জানানো সত্বেও যদি চালক তা না মানেন, শুধুমাত্র তখন জরিমানা করা হবে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে দাঁড়ানো অবস্থায় গাড়ির ইঞ্জিন চালু রাখা যাবে। যেমন ট্রাফিক সিগনালে অপেক্ষমান অবস্থায়, গাড়ির ইঞ্জিনের কোন ত্রুটি চি?িত কিংবা মেরামত করার প্রয়োজনে, গাড়ির মধ্যে থাকা কোন মেশিনারি চালানোর প্রয়োজনে ইত্যাদি।

শেয়ার করুন