ভুটানকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক :: ঘরের মাঠে খেলবে ভুটান। যারা শেষ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে সমীহ জাগানিয়া ফুটবল খেলেছিল।  তাই ভুটানের বিপক্ষে সেমিফাইনাল ম্যাচ নিয়ে কিছুটা সতর্ক ছিল বাংলাদেশ। যদিও প্রথম আসরে ভুটানকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল বাংলাদেশ।  তবুও ভুটানের বিপক্ষে গোলাম রাব্বানী ছোটন সতর্কতা অবলম্বন করে খেলতে চেয়েছিলেন।

কিন্তু তার শিষ্যরা ভুটানকে গোটা ম্যাচে স্বস্তি দেয়নি এক মুহূর্তের জন্যও। বলতে গেলে বাংলাদেশের কাছে পাত্তাই পায়নি ভুটানের কিশোরীরা। তাদের ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়শিপের ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের এমন জয়ে গোল করে অবদান রেখেছেন আনাই মোগিনি, অনুচিং মোগিনি, তহুরা খাতুন, মারিয়া মান্ডা ও শাহেদা আক্তার রিপা।

শনিবার ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে মারিয়া মান্ডা-শামসুন্নাহাররা। প্রথম সেমিফাইনালে ভারত ২-১ গোলে হারিয়েছে নেপালকে। ২০১৭ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত প্রথম আসরের ফাইনালেও মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ-ভারত। সেখানে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল লাল-সবুজের জার্সিধারীরা। আরো একটি বাংলাদেশ-ভারত ফাইনালের মঞ্চ প্রস্তুত। আবারো কী ছোটনের শিষ্যরা ভারতকে হারিয়ে শিরোপা উঁচিয়ে ধরতে পারবে?

বৃহস্পতিবার সেমিফাইনালে চাংলিমিথান স্টেডিয়ামে ভুটানের বিপক্ষে ম্যাচের শুরু থেকেই চাপ প্রয়োগ করে খেলে বাংলাদেশ। একের পর এক আক্রমণ শানিয়ে ব্যতিব্যস্ত করে তোলে ভুটানের রক্ষণভাগকে। ম্যাচের ১৮ মিনিটের সময় কর্নায় পায় বাংলাদেশ। কর্নার কিক থেকে বল ক্লিয়ার করেন ভুটানের গোলরক্ষক। বল ডি বক্সের মধ্যে চলে যায়। সেখান থেকে ভুটানের রক্ষণভাগের একজন খেলোয়াড় বল ডি বক্সের বাইরে ঠেলে দেন। বল পেয়ে যান আনাই মোগিনি। ডি বক্সের বাইরে থেকেই শট নেন মোগিনি। তার লম্বা শট ঠেকাতে পারেননি ভুটানের গোলরক্ষক। বল তার গন্তব্য খুঁজে পায়।

প্রথম গোলের ২০ মিনিটের মাথায় ব্যবধান দ্বিগুণ করেন অনুচিং মোগিনি। ৩৮ মিনিটের মাথায় ডি বক্সের মধ্যে উড়ে আসা বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে পড়ে যান ভুটানের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়। বল তার পায়ে লেগে উপরে উঠে যায়। সেই বলে ডান পায়ে জোরালো শট নেন অনুচিং মোগিনি। তার নেওয়া শট গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে জালে আশ্রয় নেয়। ৪৩ মিনিটে বাংলাদেশকে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে নেন তহুরা খাতুন। এ সময় লম্বা পাস ভুটানের রক্ষণভাগ চিড়ে গোল পোস্টের দিকে যেতে থাকে।

ভুটানের গোলরক্ষক সামনে ঝাপিয়ে পড়ে বল ধরার চেষ্টা করেন। কিন্তু ঠিকমতো ধরতে পারেননি। তার হাতছাড়া হওয়া বল তহুরা খাতুনের দিকে ঠেলে দেন শামসুন্নাহার। বল পেয়ে শট নিতে যাবেন তহুরা। তখনই তাকে ঠাক্কা দেয় ভুটানের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা। কিন্তু ধাক্কা খেয়ে বল নিয়েই পোস্টের মধ্যে ঢুকে পড়েন তহুরা খাতুন। তাতে প্রথমার্ধে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বাংলাদেশ।

বিরতির পর ম্যাচের ৬৯ মিনিটে মারিয়া মান্ডা গোল করে ব্যবধান ৪-০ করেন। এ সময় মাঝমাঠের একটু সামনে বল পেয়ে একাই টেনে নিয়ে আসেন। ডি বক্সের একটু সামনে থেকে লম্বা শট নেন। তার নেওয়া শট ভুটানের গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে গিয়ে জালে আশ্রয় নেয়। ম্যাচের ৮৬ মিনিটে ভুটানের পরাজয়ের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকেন শাহেদা আক্তার রিপার। এ সময় শামসুন্নাহার বল নিয়ে ডি বক্সের মধ্যে ঢুকতে গিয়ে বাধাপ্রাপ্ত হন। সেখান থেকে ডি বক্সের মধ্যে বল পেয়ে যান রিপা। ভুটানের গোলক্ষক সামনে এগিয় আসেন বল ধরতে। কিন্তু রিপার নেওয়া জোরালো শট ধরতে পারেননি তিনি। তাতে ৫-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। টানা দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনাল নিশ্চিত করে।

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ এর দ্বিতীয় আসরে বাংলাদেশ দলের টিম স্পন্সর হিসেবে আছে ক্রীড়াবান্ধব প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপ। এর আগে ওয়ালটন ভারতে অনুষ্ঠিত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দলের পৃষ্ঠপোষকতায় ছিল। পাশাপাশি বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ জাতীয় নারী ফুটবল দলের জাপান, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, চীন ও হংকং সফরেও তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় ছিল।

-রাইজিংবিডি

শেয়ার করুন