‘গোলাপগঞ্জে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধে মা’র বিরুদ্ধে পুত্র হত্যার অভিযোগ’

পুত্রবধূর সংবাদ সম্মেলন

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: সিলেটের গোলাপগঞ্জে স্বামী হত্যার জন্য শাশুড়িকে অভিযুক্ত করলেন পুত্রবধূ। সঞ্জু রাণী দেব নামের ওই পুত্রবধূর দাবি বাবার সম্পত্তি থেকে নিজ পুত্রকে বঞ্চিত করার লক্ষে মায়ের যোগসাজশে পুত্রকে হত্যা করা হয়। হত্যাকান্ডের পর উল্টো তিনি নিজে বাদী হয়ে পুত্র হত্যার দায়ে দায়সারা মামলা করে হত্যাকারীদের বাঁচানোর অপকৌশল করেছেন।’

বৃহস্পতিবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে গোলাপগঞ্জের দত্তরাইল নোয়াপাড়া গ্রামের মৃত লিপন চন্দ্র দেবের স্ত্রী সঞ্জু রানী দেব এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে সঞ্জু রাণী দেব অভিযোগ করেন, তার স্বামী লিপন চন্দ্র দেবের সাথে মা হেপী রাণী দেব এর বিরোধ চলছিলো। বাবার রেখে যাওয়া সম্পদ থেকে লিপনকে বঞ্চিত করতে মা হেপী রানী নানা অপতৎপরতা চালান। এমনকি লিপনকে সপরিবারে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র করেন হেপী। এ সংক্রান্ত তিনি একটি মামলাও করেছিলেন পুত্রের বিরুদ্ধে। যার নং(৩৯/২০১৮)। এই মামলায় জেল খাটেন লিপন। এর কিছু দিন পর মা হেপী রানী এক প্রতিবেশিকে দিয়ে আরো একটি মামলা করান লিপনের বিরুদ্ধে। গত ৩০ জুলাই রাতে মায়ের নেতৃত্বে হামলা হয় লিপন চন্দ্র দেব এর ঘরে। কুপিয়ে ও লাঠি দিয়ে পিঠিয়ে নির্মমভাবে খুন করা হয় লিপনকে। এসময় তাকেও রক্তাক্ত জখম করা হয়। এমনকি তার সন্তানদের ওপরও হামলা করা হয়।

সঞ্জু রানী দেব আরো অভিযোগ করেন, যে মায়ের হাতে লিপন খুন হয়, সেই মাই আবার মামলার বাদী হন। মা হেপী রাণী যেখানে পুত্র হত্যার বিচার চাওয়ার কথা, সেখানে তিনি মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন লিপন ‘গণপিটুনি’তে নিহত হয়েছে।

এছাড়া মা উল্লেখ করেন তার পুত্র লিপন আগেই ‘ গ্রামবাসীকে লক্ষ্য করে ঘরের ভেতর থেকে ঢিল ছুড়ে। বাস্তবে কোন মা কি পুত্র হত্যার বিচার চাইতে গিয়ে এরকম আত্মঘাতি কথাবার্তা মামলার এজাহারে উল্লেখ করতে পারে?’ প্রশ্ন রাখেন সঞ্জু রাণী দেব।

সঞ্জু রানী দেব আরো জানান, তার শাশুড়ির সাথে গ্রামের প্রভাবশালী একটি চক্রের হাত রয়েছে। যারা হেপী রাণীকে দিয়ে ওই মামলাটি করিয়েছে। সঞ্জু রানী বলেন, হত্যাকারীদের বাধার মুখে তিনি থানায় মামলা না করতে পারায় বাদী হয়ে আদালতে লিপন হত্যা মামলা দায়ের করেন। এতে শাশুড়ি হেপী রাণীকে প্রধান আসামি করে ১৬ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

অন্য আসামিরা হলেনÑ রাখাল পাল, রাহুল পাল, মুন্না, ছাদেক, শাপুল, লালমতি রুহি দাস, বীরবল রুহি দাস, নির্মল রুহি দাস, মঞ্জু রুহি দাস, বাদল রুহি দাস, সায়েম আহমদ, একরাম আহমদ, আব্দুস সালাম, বাবুল মিয়া ও রুফুল আহমদ। সঞ্জু রাণী দেব স্বামী হত্যার বিচার নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং আসামিদের গ্রেপ্তার করে বিচারের মুখোমুখি করার আহবান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো জানান, হত্যাকান্ডের পর তাকে তার সন্তানাদিসহ বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন শ্বাশুড়ি হেপী রাণী দেব। তিন শিশু সন্তানসহ এখন অসহায় দিন যাপন করছেন। এছাড়া, নিজের ও সন্তানদের জীবন নিয়ে শংকায় আছেন সঞ্জু রাণী দেব। বড় ছেলের স্কুলে যাওয়াও বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় সরকার, প্রশাসন, ও বিবেকবান সমাজের হস্তক্ষেপে স্বামী হত্যার বিচার ও স্বামীর ভিটেতে ফিরতে চান বিধবা সঞ্জু রাণী দেব। সংবাদ সম্মেলনে সঞ্জু রাণীর তিন সন্তান বাধন দেব, অর্পণ দেব ও রূপন দেব উপস্থিত ছিল।

শেয়ার করুন