কানাডার টরন্টোতে বিশ্ব সিলেট সম্মেলন আয়োজন

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত সিলেটের অধিবাসীদের রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পেশাগত সাফল্যকে উদ্যাপন করতে বিভিন্ন দেশের পর এবার কানাডায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে চতুর্থ বিশ্ব সিলেট সম্মেলন। জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব কানাডার আয়োজনে এবং জালালাবাদ এসোসিয়েশন ঢাকার সহযোগতিায় কানাডার টরন্টো সিটির গ্র্যান্ড প্যালেস কনভেনশন সেন্টারে আগামী ১ ও ২ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে এ সম্মেলন।

আয়োজকরা জানিয়েছেন ইতোমধ্যে অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। তারা জানান- প্রাচীনকাল থেকে সিলেটী মানুষের আতিথেয়তা, সহনশীলতা ও গ্রহণযোগ্যতার পাশাপাশি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক পরিবেশে অনেক জ্ঞানী, গুণী, কবি, ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গড়ে উঠেছেন। তদুপরি হজরত শাহজালাল (রা.) ইসলামিক সুফি আদর্শে ভালোবাসা ও সহনশীলতার অবকাঠামো এবং সিলেটের সন্তান মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যের প্রভাবে হিন্দুদের মধ্যে বৈষ্ণব ধর্মের মানবিক গুণগুলো প্রসার লাভ করে। সে কারণে সিলেটের বিভিন্ন পল্লী কবির সুরে ও ছন্দে সব ধর্মের মানুষকে একই সুতায় গাঁথে। আজ সিলেট একটি শুধু মানচিত্র নয়, আজ সিলেটের বিশ্বায়ন হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত সিলেটবাসীদের মধ্যে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্য বৃদ্ধির জন্য বিশ্ব সিলেট সম্মেলন আহ্বান জানাচ্ছে।

জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব টরন্টোর সভাপতি দেবব্রত দে তমাল বলেন- ভারতের দক্ষিণ কলকাতা সিলেটি এসোসিয়েশন সিলেটি সম্মেলন শুরু করে অভূতপূর্ব এক সাড়া জাগিয়েছে। ঢাকা জালালাবাদ এসোসিয়েশন কর্তৃক এই বছর বাংলাদেশের ঢাকায় ও সিলেটে ও সুন্দর ভাবে তার পুনরাবৃত্তি ঘটেছে। এই ধারাবাহিকতাকে সম্মান জানিয়ে সিলেট থেকে অনেক দূরে থেকেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যারা সিলেটি ঐতিহ্য ও ভালোবাসাকে জাগিয়ে রেখেছেন তাদের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজন একটা মিলন মেলার শুভ আয়োজন। সম্মেলনে কানাডাসহ বাংলাদেশ, ভারত, কানাডা, যুক্তরাজ্য, জাপান, জার্মানী, মধপ্রাচ্য, মালয়েশিয়া ও অন্যান্য দেশ থেকে অনেকেই অংশ গ্রহণ করবেন।

সম্মলেনের আয়োজক সংগঠন জালালাবাদ এসোসিয়শন অব টরন্টো কানাডার সাধারণ সম্পাদক মাহবুব চৌধুরী রনি জানান, সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী,সিলেটের কৃতি সন্তান এবং সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

সম্মেলনে থাকবে সংগীত, নৃত্য, মিলন মেলা, আত্মকথা, পরিচিতি, শুভেচ্ছা বিনিময়, প্রজন্মের অনুভূতি, শিকড়ের সন্ধানে, সিলেটী খাবার ও অন্যান্য স্টল। তদুপরি থাকবে প্রস্তাবিত বিভিন্ন বাস্তব প্রকল্প যাতে সিলেট অঞ্চলের ইতিহাস, ঐতিহ্য, ভাষা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিশেষত্বের সংরক্ষণ করা যায়।

দুদিন ব্যাপী অনুষ্ঠানে সেমিনারে আলোচ্য বিষয় হিসেবে থাকবে মুক্তিযুদ্ধে সিলেট, ভাষা আন্দোলনে সিলেট, সাংবাদিকতায় সিলেট, শিল্প-সংস্কৃতিতে সিলেট, শিল্প-বাণিজ্যে সিলেট, পর্যটনে সিলেট, সিলেটের নাগরি লিপি, সুফি-দরবেশদের পুণ্যভূমি সিলেট, বাংলাদেশের উন্নয়নে প্রবাসী সিলেটবাসীর ভূমিকা ইত্যাদি। এসব বিষয়ে আলোচনায় প্রতিষ্ঠিত গবেষক, লেখক, শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ও পরিবেশবিদেরা অংশ নেবেন।

আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকবে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মণিপুরী নৃত্য, মালজোরা গান, বাউল সংগীত, ধামাইল নাচ, বিয়ের গান ইত্যাদি।

শেয়ার করুন