বিএনপির সাথে টেলিফোনে কথা হতে পারে: কাদের

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আবারো সংলাপে বসার আহ্বানের বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সঙ্গে কোনো সংলাপের প্রয়োজন নাই। প্রয়োজনের টেলিফোনে কথা হতে পারে।

তিনি বলেন, জাতীয় নির্বাচনের মাত্র তিন মাস বাকি। নির্বাচনের আগে তফসিল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচন নিয়ে তাই কারো সঙ্গে কোনো আনুষ্ঠানিক সংলাপের প্রয়োজন নেই।

শুক্রবার (২৭ জুলাই) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইডিবি ভবনের সামনে মেট্রোরেল প্রকল্প কাজের অগ্রগতি পরিদর্শনে এসে উপস্থিত সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে জাববে তিনি এ কথা বলেন।

কাদের বলেন, তবে ওয়ার্কিং আন্ডারস্ট্যান্ডিংয়ের জন্য যে কোনো রাজনৈতিক দলের নেতার সঙ্গে ফোনে কথাবার্তা হতেই পারে। রাজনৈতিক দলের নেতাদের মধ্যে সৌজন্যমূলক যোগাযোগ থাকলে অনেক সমস্যাই সমাধান করা যায়।

মহাজোটের আকার বাড়তে পারে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, জোটের আকার বাড়তেই পারে। অনেক রাজনৈতিক দল রয়েছে যারা মহাজোট আসতে চাইছে। আবার অনেকে আলাদা-আলাদা জোট করে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিতে চাচ্ছে।

তিনি বলেন, নির্বাচনের আগে অনেক রাজনৈতিক মেরুকরণ হবে সেটাই স্বাভাবিক। তবে তা জানার জন্য আরো অপেক্ষা করতে হবে। আগামী অক্টোবরের মধ্যে তা পরিষ্কার হয়ে যাবে।

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির দুর্নীতির প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, সরকার দোষীদের শাস্তির বিষয়ে সক্রিয় কিনা সেটা দেখতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কেলেঙ্কেকারির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে যা ঘটেছে, তা ঘটতে পারে না। সরকার এ বিষয়ে নীরব নেই।

কাদের বলেন, ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) লাইন-৬’র রাজধানীর উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এবং মতিঝিলের বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত ২০২০ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের সংশোধিত পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

প্রকল্পের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গুলশানের হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনা না ঘটলে এ প্রকল্পের কাজ আরো আগে শেষ হতো।

সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, ৩৭ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেলে ৬০ হাজার লোক যাতায়াত করতে পারবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হওয়ার পর রাজধানীবাসী যানজটের কবল থেকে রেহাই পাবে বলে আশা করছি।

উত্তর থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশের মোট দৈর্ঘ্য ১১ দশমিক ৭ কিলোমিটার এবং নয়টি স্টেশন থাকবে।

প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে জাইকার আর্থিক সহযোগিতায় উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল বাস্তবায়িত হচ্ছে। মেট্রোরেলের স্টেশন সংখ্যা হবে ১৬। এগুলো হলো- উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগরগাঁও, বিজয় সরণী, ফার্মগেট, কাওরান বাজার, শাহবাগ, টিএসসি, প্রেস ক্লাব এবং মতিঝিল (বাংলাদেশ ব্যাংকের সামনে)।

মেট্রোরেলের মোট দৈর্ঘ্য হবে ২০ কিলোমিটার। এতে ২৪ সেট ট্রেন চলাচল করবে। প্রত্যেক ট্রেনে ৬টি করে কার থাকবে। ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১০০ কিলোমিটার বেগে চলবে মেট্রোরেল। উভয়দিক থেকে ঘণ্টায় যাত্রী পরিবহন করবে ৬০ হাজার।

মেট্রোরেল পরিদর্শন শেষে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) সভাপতি ও উপমহাদেশে বাম রাজনীতির অন্যতম পুরোধা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদকে (৯৭) দেখতে যান ওবায়দুল কাদের। অধ্যাপক মোজাফফর রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার এ্যাপোলো হসপিটালের আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন।

শেয়ার করুন