বাংলাদেশ ব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক শান্তনু কুমার রায়ের পিতৃবিয়োগ

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: বাংলাদেশ ব্যাংক সিলেট অফিসের উপমহাব্যবস্থাপক শান্তনু কুমার রায়ের পিতা সুভাষ রঞ্জন রায় গতকাল শনিবার সকাল ৬.৫০ ঘটিকায় বাধ্যক্ষজনিত কারণে ছোট ছেলের বাসভবনে পরলোকগমণ করেছেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯১ বছর। তিনি ২ছেলে, ১মেয়ে নাতি নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন রেখে গেছেন।

শনিবার বিকালে ওসমানীনগর উপজেলার সাদীপুর গ্রামে পারিবারক শ্মশানে মরদেহের সৎকার সম্পন্ন হয়। প্রয়াতের ছেলে মেয়েরা সবাই ব্যাংকার। বড় ছেলে অকাল প্রয়াত সঞ্জীবন রায় সোনালী ব্যাংক লিঃ, দ্বিতীয় ছেলে সন্দ্বীপ রায় জনতা ব্যাংক লিঃ সিলেট কর্পোরেট শাখার উপমহাব্যবস্থাপক ও একমাত্র কন্যা রুমা রায় জনতা ব্যাংক লিঃ কাজিটোলা শাখার কর্মকর্তা।

উপমহাব্যবস্থাপক শান্তনু কুমার রায়ের পিতার মৃত্যু সংবাদ শুনে বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মোঃ সাজ্জাদ হোসেন ও জীবন কৃষ্ণ রায়, জনতা ব্যাংক লিঃ এর মহাব্যবস্থাপক মোঃ রিয়াজুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক মোঃ হারুনুর রশিদ, ছৈয়দ আহমদ, শামীমা নার্গিস, মোঃ কমর উদ্দিন, যুগ্ম পরিচালক নৃত্য রঞ্জন দত্ত পুরকায়স্থ, মোঃ আতিকুর রহমান, মোঃ জাবেদ আহমদ, প্রসুন কান্তি সামন্ত, সুভাষ চন্দ্র আচার্য্য, জামাল উদ্দিন চৌধুরী,হেমেন্দ্র কুমার তালুকদার,পরেশ চন্দ্র দেবনাথ, একেএম আক্তার ফারুক, যুগ্ম ব্যবস্থাপক(ক্যাশ) মোঃ আশরাফ হোসেন, উপ পরিচালক রবি লাল দত্ত, লক্ষী কান্ত দাশ, নিরেন্দ্র চন্দ্র দাশ, জলি তালুকদার, বিনয় ভূষণ রায়, মোঃ আব্দুল হাদী, মলয় কান্তি পাল, অনঙ্গ বিজয় চক্রবর্তী, সহকারী পরিচালক কাজী করিমুজ্জামান, রাজেশ্বর ভট্টাচার্য্য, সিবিএ সভাপতি মোঃ মোফাখ্খারুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ মোঃ আলমগীর প্রমুখ তাঁর মেজরটিলাস্থ উত্তরা আবাসিক এলাকার বাসভবনে যান এবং সমবেদনা প্রকাশ করেন।

শেয়ার করুন