জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠাবে না মালয়েশিয়া: মাহাথির

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠানো হবে না। যতক্ষণ তিনি কোনও সমস্যা তৈরি করছেন না, ততক্ষণ আমরা তাকে ফেরত পাঠাবো না। ‘বিদ্বেষমুলক বক্তব্য ও জঙ্গিবাদ সম্পর্কিত’ অভিযোগের কারণে ভারত সরকার জাকিরের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে।

গত বছর ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরায় জঙ্গি হামলাকারীদের অন্তত দুইজন জাকির নায়েককে অনুসরণ করতো বলে দাবী করা হয়। ওই বছর তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হলে ভারত ছেড়ে যান তিনি। পরে সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশ ঘুরে মালয়েশিয়ায় তিনি আশ্রয় নেন। ভারতের সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী এই বছরের জানুয়ারিতে তাকে ফেরত পাঠাতে মালয়েশিয়াকে অনুরোধ জানায় ভারত। দেশ দুটির মধ্যে প্রত্যার্পণ চুক্তি রয়েছে।

তবে ভারত বা মালয়েশিয়া কোনোদেশের কর্মকর্তারাই জাকির নায়েককে ফেরত পাঠানোর আবেদনের বিষয় নিশ্চিত করেননি। বুধবার ভারতীয় কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়,ওই দিনই তাকে মালয়েশিয়া থেকে ভারত ফিরিয়ে আনা হবে। এমন খবর প্রকাশিত হওয়ার পর জনসংযোগ কর্মকর্তার মাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে জাকির নায়েক বলেন, আমার ভারতে ফিরে আসার খবর ভিত্তিহীন ও মিথ্যা। অবিচার থেকে নিরাপদবোধ করার আগ পর্যন্ত ভারতে ফেরার কোনও পরিকল্পনা আমার নেই।

শুক্রবার মালয়েশিয়ার প্রশাসনিক রাজধানী পুত্রজায়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরের বিষয়ে মাহাথিরের বক্তব্য জানতে চান সাংবাদিকরা। তখন তিনি বলেন, যতক্ষণ তিনি কোনও সমস্যা তৈরি করছেন না, ততক্ষণ আমরা তাকে ফেরত পাঠাবো না। কারণ তাকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

ভারতের সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ‘বিদ্বেষমূলক বক্তব্য’ দিয়ে তরুণদের জঙ্গি কর্মকাণ্ডে উৎসাহ দেওয়ার জন্য ভারত জাকির নায়েককে ফেরত চেয়েছে। ৫২ বছর বয়সী জাকির এই সংবাদকে ‘সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও ভুয়া’ বলে বর্ণনা করেছেন।

প্রসঙ্গত,ভারতে বিভিন্ন সময়ে আটক হওয়া জঙ্গিরা জাকির নায়েককে অনুসরণ করতো অভিযোগে ভারতে জাকির নায়েক ও তার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। জানুয়ারিতে তার নামে জারি হয় সমন। এরপর আরও তিনবার সমন জারি হলেও আদালতে যাননি তিনি। উগ্রবাদ প্রচারের অভিযোগে এনআইএ-এর তলবেও সাড়া দেননি এই বক্তা। তদন্তের স্বার্থে দেশে ফেরার নির্দেশ দেওয়া হলেও নায়েক ভারতে ফেরেননি।

শেয়ার করুন