এমইউ ক্যাম্পাসে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আসহাব উদ্দিন বলেছেন, ‘পৃথিবীর সবচেয়ে নির্যাতিত নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী হচ্ছে রোহিঙ্গা। একটা জাতিকে কীভাবে ধ্বংস করা যায়, রোহিঙ্গা হচ্ছে তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ। বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী রোহিঙ্গাদের বহন করছে। মানবিক কারণে তাদেরকে আশ্রয় দেয়া হলেও এই বিষয়টি বাংলাদেশের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

বুধবার মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে ‘অ্যান ওভারভিউ অব দ্য রোহিঙ্গা ইস্যু’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি। বেলা আড়াইটা থেকে বিকাল পৌনে ৫টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম. হাবিবুর রহমান লাইব্রেরি হলে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর চেয়ারম্যান ড. তৌফিক রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ফজলুর রব তানভীরের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক শিব প্রসাদ সেন উপস্থিত ছিলেন।

সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আসহাব উদ্দিন আরো বলেন, ‘মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। ছোট ছোট বাচ্চাদের ছুড়ে ফেলে হত্যা করা হয়েছে। মায়ানমারে ১৩৫টি জাতিগোষ্ঠী আছে। কিন্ত দেশটির সরকার তাদের নাগরিকত্ব অস্বীকার করে, মানবিক অধিকার অস্বীকার করে।’

আরাকান রোহিঙ্গা সলিডারিটি আর্মি (আরসা) এর প্রসঙ্গে আসহাব উদ্দিন বলেন, ‘আরসার সদস্য দুই-তিনশ। এদের কাছে উন্নতমানের কোনো অস্ত্রও নেই। এরা ২০১৬ সালে মায়ানামার সেনা ক্যাম্পে হামলা চালায়। যাদের কাছে উন্নতমানের অস্ত্রশস্ত্র নেই, তারা কেন আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত সেনা ক্যাম্পে হামলা চালালো। আমার ব্যক্তিগত মতামত, এই আরসা সৃষ্টি করেছে মায়ানামার সেনাবাহিনী। যাতে এদের দোহাই দিয়ে তারা রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা চালাতে পারে।’

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ কূটনৈতিকভাবে প্রতিবেশী দেশগুলোকে নিজেদের পক্ষে টানতে পারেনি উল্লেখ করে জেনারেল আসহাব উদ্দিন বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারত, চিন, রাশিয়া কাউকেই পাশে পায়নি বাংলাদেশ। সময় গড়ানোর সাথে সাথে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় এক সমস্যা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এই ইস্যুতে তাই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে জাতিসংঘ, ইউএনডিপি, ইউএনএইচসিআর, ওআইসি, ভারত, চিন, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া সবাইকে যুক্ত করতে হবে। সবাইকে বুঝাতে হবে, এটা শুধু আমাদের সমস্যা নয়, এটা গোটা বিশ্বের সমস্যা।’

সভায় মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির কর্মকর্তা, শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন