রমজান মাসজুড়ে রাফাহ সীমান্ত খোলে দিয়েছে মিসর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ইসরায়েল অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকা সংলগ্ন মিসরের রাফাহ সীমান্ত খুলে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল সিসি পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষ্যে এক মাস ধরে এই সীমান্ত খুলে দেওয়ার ঘোষণা দেন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এসব থথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এই সীমান্ত বেশিরভাগ সময়ই বন্ধ থাকে। প্রতি ২-৩ মাস পর হয়তো কয়েকদিনের জন্য খুলে দেয় মিসর। বিগত কয়েক বছরে এবারই সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে খুলে দেওয়ার ঘোষণা দিল মিসর।

এক টুইট বার্তায় সিসি বলেন, ‘আমি সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছি যেন পবিত্র রমজান মাসজুড়ে এই সীমান্ত খোলা থাকে।

সোমাবার গাজা উপত্যকায় ভূমি দিবস উপলক্ষ্যে আন্দোলনরত অর্ধশতাধিক ফিলিস্তিনিদের হত্যা করেছে ইসরায়েল বাহিনী। গাজা উপত্যকার নিয়ন্ত্রণ হামাসের কাছে থাকলেও এর সীমান্ত তাদের দখলে নেই। রাফাহ সীমান্ত মিসরের দখলে ও এরেজ সীমান্ত ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। কায়রোতে এক চুক্তি অনুযায়ী এই সীমান্ত ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিয়েছিল মিসর।

২০১৩ সালে সিনাই উপদ্বীপ অঞ্জলে মিসরীয় বাহিনীর ওপর হামলার পরই এই সীমান্ত বন্ধ করে দেয় মিসর। তাদের অভিযোগ ফিলিস্তিনিরা এই হামলা চালিয়েছে। সীমান্ত বন্ধ হয়ে যাওয়া স্বাস্থ্য ও মৌলিক সেবা থেকে বঞ্চিত ছিল অনেক ফিলিস্তিনি।

২০০৭ সাল থেকে গাজা উপত্যকার আকাশ, স্থল ও জলপথ বন্ধ করে দেয় ইসরায়েল। গাজার মোট সাতটি সীমান্ত রয়েছে আর এর ছয়টিই ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণে। একটি মাত্র সীমান্ত রাফাহ মিসরের নিয়ন্ত্রণে। ২০১৩ সালে মোহাম্মদ মুরসির উৎখাতের পর এই সীমান্তও বেশিরভাগ সময় বন্ধ থাকে।

২০০৭ সালে গাজার ওপর সর্বাত্মক অবরোধ চাপিয়ে দেয় ইসরায়েল। তখন থেকে গাজার অধিবাসীরা বাইরের জগতের সঙ্গে প্রায় সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন। গাজা থেকে যেসব মানুষ চিকিৎসাসহ জরুরি প্রয়োজন মেটাতে বাইরে যেতে চান দীর্ঘদিন ধরে রাফাহ সীমান্ত বন্ধ থাকায় তাদের পক্ষে তা সম্ভব হচ্ছিল না। আবার বাইরে থেকে যেসব নাগরিক গাজায় ফিরতে চান তারাও যেতে পারছিলেন না।

শেয়ার করুন