নগরীতে দেড়শত কোটি টাকা মূল্যের সরকারি ভূমি আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগ

সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

সিলেটের সকাল রিপোর্ট :: সিলেট নগরীর যতরপুর এলাকায় জাল দলিলের মাধ্যমে দেড়শত কোটি টাকা মূল্যের প্রায় ৩ একর ভূমি আত্মসাতের অপচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার নগরীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে যতরপুর নবপুষ্প আবাসিক এলাকার বাসিন্দাদের পক্ষ থেকে সিলেট এ অভিযোগ করা হয়েছে। জনৈক মনিন্দ্র চন্দ্র দের নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ জালিয়াত চক্র এ অপচেষ্টা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে।

নবপুষ্প আবাসিক এলাকার বাসিন্দা মামুন উদ্দিন চৌধুরীর পক্ষ থেকে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন যতরপুরস্থ গৌরাঙ্গ মহাপ্রভু আখড়া কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাতুলেন্দু দত্ত।

সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা বলেন, রাষ্ট্রীয় সম্পদ সিলেটের যতরপুর এলাকার প্রায় দেড়শত কোটি টাকার ভূমি জালিয়াত চক্রের কবল থেকে রক্ষার জন্য আমরা প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীর দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছি। বিজ্ঞ হাইকোর্টে দুটি রিট বিচারাধীন থাকা অবস্থায় সব ধরনের অবমুক্তি ও নামজারি প্রক্রিয়া স্থগিত রাখার জন্য আমরা সিলেটের জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সুদৃষ্টি কামনা করছি। পাশাপাশি জালিয়াত মনিন্দ্র রঞ্জন দের বিরুদ্ধে জালিয়াতির মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় সম্পদ আত্মসাতের অপচেষ্টার দায়ে অবিলম্বে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশন ও পুলিশ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

মনিন্দ্র রঞ্জন দেকে একজন পেশাদার জালিয়াত আখ্যায়িত করে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, মনিন্দ্র সিলেটের কোতোয়ালী থানার সিআর মামলা নং- ৭৯৯/২০১৫ এর এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামী। ২০০৪ সালে মিরাবাজারস্থ মৌসুমী আগপাড়া এলাকায় মনিন্দ্রের ভাড়াটিয়া বাসা থেকে পুলিশ বিপুল পরিমাণ জাল টাকা ও জালা পাসপোর্ট উদ্ধার করে। এ ঘটনায় মনিন্দ্র তার তার ভাই সুকেশ রঞ্জন দে ওরফে সুবাশ দের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করা হয়, যা বিচারাধীন আছে। এছাড়া, মনিন্দ্রের ভাই সুকেশ জাল টাকাসহ গোয়াইনঘাট থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে জেল খাটে। ক্বারী আব্দুল মতিনের দায়ের করা ৪টি মামলায় মনিন্দ্রের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। পেশাদার জালিয়াত মনিন্দ্রকে অবিলম্বে গ্রেপ্তার করার জন্যও আমরা পুলিশ প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা মামুন উদ্দিন চৌধুরী, গৌরাঙ্গ আখড়া কমিটির আহবায়ক অরুণ কুমার রায়, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর বোন সৈয়দা মহিদুন্নছা খানম, জুয়েল আহমদ চৌধুরী, চৌধুরী আলী আখতারুজ্জামান বাবুল, নারায়ন পুরকায়স্থ ফনি, আব্দুল মতিন, আাব্দুল মানিক, ওহিদ উদ্দিন প্রমুখ।

শেয়ার করুন