ছাতকে লিচু বাগান পরিদর্শণে কোম্পানীগঞ্জের কৃষকরা

ছাতক প্রতিনিধি :: লিচু, কাঠাল ও শাক-সবজির উৎপাদন বৃদ্ধি করণের লক্ষে বুধবার ছাতকের লিচুখ্যাত নোয়ারাই ইউনিয়নের মানিকপুরের লিচু বাগান ভ্রমণ করেছেন সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার কৃষকগন।

কোম্পানীগঞ্জ কৃষি অফিসের উদ্যোগে ৩০জন কৃষক উদ্বুদ্ধকরণ ভ্রমনে অংশ গ্রহন করেন। ভ্রমণকালে লিচুসহ বিভিন্ন ফল ও শাক-সবজি চাষের প্রয়োজনীয় করণীয়তা সম্পর্কে কৃষকদের হাতে-কলমে ধারনা দেয়া হয়।

দিনব্যাপী লিচু বাগান ও শাক-সবজির ক্ষেত ঘুরে দেখেন ভ্রমণকারী কৃষক দল। ব্রিটিশ শাসনামলে তৎকালীন দু’জমিদার মানিকপুরে অবস্থান করে খাজনা আদায় করতেন। বাগান সাজানোর লক্ষে তারা এখানে ৮/১০ টি লিচুর গাছ লাগান। কালের পরিক্রমায় এর বিস্তৃতি বৃদ্ধি পায় মানিকপুর, গোদাবাড়ী, কচুদাইড়, চানপুর, বড়গল্লা এবং দোয়ারাবাজারের লামা সানিয়া ও লাস্তবেরগাও গ্রামে। দীর্ঘদিন ধরে মানিকপুরে লিচু উৎপাদন হলেও প্রচারের অভাবে এর খ্যাতি রয়ে যায় অজানা।

২০১৩ সালে ছাতকের বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে সরকারী কর্মকর্তাদের সাথে এক মতবিনিময় সভা করেন মুহিবুর রহমান মানিক এমপি। এ সভায় মানিকপুরের লিচু চাষীদের মাঝে উন্নত জাতের লিচুর চারা সরবরাহ এবং লিচুর শত্রু বাদুরের আক্রমণ রোধে এলাকায় বিদ্যুত সরবরাহের অনুরোধ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন উপজেলা উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা আব্দুল হামিদ। বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে পরের বছর এলাকার লিচু চাষীদের মাঝে প্রায় ৫ সহস্রাধিক চারা ও বিদ্যুতের সোলার প্যানেল বিতরণ করেন এমপি মানিক। মানিকপুরের লিচু বাগানে বুধবার কৃৃষকদের নিয়ে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার কৃষক উদ্বুদ্ধকরণ ভ্রমণে অধিক গুরুত্বারোপ পেল কৃষি বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তাদের কাছে। সকালে ভ্রমণ দলটি ছাতকে এসে পৌছলে তাদের স্বাগত জানান ছাতক উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কেএম বদরুল হক। এসময় উপস্থিত ছিলেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা কৃৃষি কর্মকর্তা জাকির হোসেনসহ লিচু চাষী শুকুর আলী, জামাল উদ্দিন, রুস্তম আলী, আব্দুর রশিদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন