সালমান শাহ হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ২০ আগস্ট

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: বাংলাদেশী চলচ্চিত্র জগতের চিরসবুজ নায়ক সালমান শাহ হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন পিছিয়েছে।

বৃহস্পতিবার পুনঃতদন্তের প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য থাকলেও তা জমা দেননি মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্তকারী কর্মকর্তা। এ কারণে এটি জমা দেওয়ার জন্য আগামী ২০ আগস্ট নতুন তারিখ ধার্য করেন ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস। বাদী পক্ষের আইনজীবী ফারুক আহম্মদ এসব তথ্য জানান।

শুনানির সময় আদালতে চত্বরে সালমান শাহ’র মা নীলা চৌধুরীসহ ভক্তরা হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে স্লোগান দিতে থাকেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী বলেছেন, ‘আমরা আজ আদালতে ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ও ডোমকে সাক্ষী হিসেবে গ্রহণের জন্য আদালতে আবেদন করেছি। বিচারক তা মঞ্জুরের মাধ্যমে প্রতিবেদনটি জমার জন্য আগামী ২০ আগস্ট নতুন তারিখ ধার্য করেন।’

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর ইস্কাটন রোডে নিজের বাসা থেকে সালমান শাহ’র লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনাকে প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যা উল্লেখ করে পুলিশ একটি অপমৃত্যুর মামলা করলেও তার পরিবার বিষয়টিকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে অভিযোগ করে।

ঘটনার পর বেশ কয়েকবার আত্মহত্যা উল্লেখ করে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হলেও সালমানের পরিবার তাতে নারাজি আবেদন করে পুনঃতদন্ত চায়। প্রায় ১৮ বছর আগের এই মৃত্যুর ঘটনা হত্যা নাকি আত্মহত্যা, তা নির্ধারণে এ বছরের জানুয়ারিতে মামলাটি আবারও আদালতে ওঠে।

চিত্রনায়ক সালমান আত্মহত্যাই করেছিলেন— বিচার বিভাগীয় তদন্তের এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সবশেষ ২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ঘটনাটিকে হত্যাকাণ্ড দাবি করেন সালমানের মা নীলা চৌধুরী। তিনি ব্যক্তিগত আইনজীবী মাহফুজ মিয়ার মাধ্যমে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে নারাজি দেন। এতে আজিজ মোহাম্মাদ ভাইসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়।

পরে মামলার তদন্ত দেওয়া হয় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়নকে (র‌্যাব)। বেশ কয়েকবার শুনানি নিয়ে ২০১৬ সালের ১৯ মে মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা বিব্রত বোধ করে ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে মামলার নথি পাঠিয়ে দেন।

এ আদালতের বিচারক মো. ইমরুল কায়েস ওই বছরের ২১ অগাস্ট র‌্যাবের মাধ্যমে পুনঃতদন্তের (অধিকতর) আদেশ আইনসম্মত হয়নি উল্লেখ করে বিষয়টি আবারও শুনানি নেওয়ার জন্য ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমকে দায়িত্ব দেন। এর ধারাবাহিকতায় মহানগর হাকিম লস্কর সোহেল রানা নারাজি আবেদনের ওপর আবারও শুনানি নেন।

গত ৭ ডিসেম্বর শুনানির পর সালমান শাহর মৃত্যুর ঘটনা হত্যা না আত্মহত্যা, তা নির্ধারণের জন্য র‌্যাবের পরিবর্তে পিবিআইকে দায়িত্ব দেন।

শেয়ার করুন