‘স্বাধীনতা কারো দানে পাওয়া নয়, আমাদের অর্জন’

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: ভাষাসৈনিক, প্রবীণ শিক্ষাবিদ প্রফেসর মো. আব্দুল আজিজ বলেছেন, স্বাধীনতা কারো দানে পাওয়া নয়, এটা আমাদের অর্জন। স্বাধীনতা অর্জনের জন্য যারা তাদের জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছেন, তারা জাতির শ্রেষ্ট সন্তান। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের অন্যতম উন্নয়নশীল এবং নিম্ন মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধারা এ দেশ স্বাধীন করলে দেশ আজ এই পর্যায়ে পৌঁছতে পারতো না। মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সম্মান জানানোর মাধ্যমে সমগ্র জাতিকে সম্মান জানানো হয়। বহু কষ্টে অর্জিত স্বাধীনতা ধরে রেখে দেশকে গড়ার জন্য কাজ করতে হবে।

কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেট-এর উদ্যোগে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৮ উদযাপন, বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল কামাল-কে সম্মাননা প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সংসদের সহ সভাপতি, প্রবীণ সাংবাদিক মুহম্মদ বশিরুদ্দিনের সভাপতিত্বে সোমবার সন্ধ্যায় সংসদের সাহিত্য আসর কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সংসদের সহ সভাপতি, প্রবীণ রাজনীতিবীদ সমাজসেবী আ ন ম শফিকুল হক, অনুভূতি প্রকাশ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল কামাল।

সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরীর স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দৈনিক উত্তরপূর্ব পত্রিকার প্রধান সম্পাদক, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আজিজ আহমদ সেলিম, কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ সভাপতি সেলিম আউয়াল, সহ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মবনু, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মুকিত অপি, কার্যকরী কমিটির সদস্য মাওলানা ফজলুল করিম আজাদ, জাহেদুর রহমান চৌধুরী, রুহুল ফারুক, ইসলামী ফাউন্ডেশন, সিলেট-এর সহকারী পরিচালক মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম।

সংসদের কোষাধ্যক্ষ এডভোকেট আব্দুস সাদেক লিপনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় সংবর্ধিত অতিথি বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরীর সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরেন কার্যকরী কমিটির সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল কামালের পরিচয় তুলে ধরেন কার্যকরী কমিটির সদস্য সৈয়দ মোহাম্মদ তাহের। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন হাফিজ বদর উদ্দিন রব্বানী। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি এবং অন্যান্য অতিথিবৃন্দ সংবর্ধিত অতিথি বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল কামালের হতে সম্মাননা ক্রেস্ট এবং সার্টিফিকেট তুলে দেন।

অনুভূতি ব্যক্ত করে বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী বলেন, অনেক ত্যাগ-তিতিক্ষার মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে। স্বাধীনতা অর্জনের জন্য বীর মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে সামনে এগিয়ে এসেছে। আজকে তাদেরকে সম্মাননা প্রদান করে সমগ্র জাতিকেই সম্মান জানানো হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধাদেরকে আমরা যত বেশি সম্মান জানাতে পারবো, আমাদের জাতীয় মূল্যবোধের ভিত্তি তত মজবতু হবে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল কামাল বলেন, আমরা অত্যন্ত সৌভাগ্যবান যে, যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে দেশকে স্বাধীনতা এনে দিতে জীবন বাজি রেখেছি। তখন স্বাধীনতা অর্জন করা অনেক বড় ধরনের কঠিন কাজ ছিল। সেটাই আমরা করেছি। আজকে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সম্মাননা প্রদান করে বড় ধরনের কাজ করছে। এর মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে। অবর্ণনীয় কষ্টের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতি থেকে রক্ষা পাবে।

সভাপতির বক্তব্যে সংসদের সহ সভাপতি মুহম্মদ বশিরুদ্দিন বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাদেরকে মূল্যায়নের মাধ্যমে জাতি উপকৃত হয়। জাতি সম্মানিত হয়। তাদের ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতাকে মূল্যায়নের জন্য দেশের জন্য কাজ করতে হবে। তাদের স্বপ্নের সোনার দেশ গড়তে দৃঢ় প্রতীজ্ঞ হতে হবে।

শেয়ার করুন