প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমানের সাথে সিলেট চেম্বার নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সভাপতি জনাব খন্দকার সিপার আহমদের নেতৃত্বে চেম্বার নেতৃবৃন্দ মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকায় মাননীয় প্রধামন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব জনাব মো. নজিবুর রহমানের সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। এ সময় তারা সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হওয়ার জন্য জনাব মোঃ নজিবুর রহমানকে ধন্যবাদ জানান।

সাক্ষাৎকালে প্রধামন্ত্রীর মুখ্য সচিব জনাব মোঃ নজিবুর রহমান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্বে ও সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা বর্তমানে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি লাভ করেছি। অচিরেই বাংলাদেশ একটি উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা তুলে দাঁড়াবে। তিনি বর্তমান সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ ও সফলতার কথা সভায় তুলে ধরেন। তিনি সিলেট চেম্বারের পক্ষ থেকে উত্থাপিত প্রস্তাব সমূহ যথাযথভাবে বিবেচনার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন। এছাড়াও তিনি আগামী ২৭-২৮ এপ্রিল তার সিলেট সফরকালে চেম্বার নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় মিলিত হওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন।

সিলেট চেম্বারের সভাপতি জনাব খন্দকার সিপার আহমদ তার বক্তব্যে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হওয়ার জন্য জনাব মোঃ নজিবুর রহমান-কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসায়ীদের কল্যাণে অত্যন্ত আন্তরিক। বিশেষ করে সিলেট অঞ্চলে ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্প ও আইটি খাতের উন্নয়নে বর্তমান সরকার অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন যার মধ্যে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন, হাইটেক পার্ক নির্মাণ ইত্যাদি অন্যতম। এজন্য তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, মাননীয় অর্থমন্ত্রী জনাব আবুল মাল আবদুল মুহিত, এমপি সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ সফরকালে বিভাগীয় চেম্বার হিসেবে সিলেট চেম্বারের সভাপতি বা প্রতিনিধি-কে সফরসঙ্গী করা, সিলেটে গ্যাস সংযোগ পুনরায় চালু করা, সিলেট-ঢাকা-সিলেট ও সিলেট-চট্টগ্রাম-সিলেট রুটে রেলের নতুন বগি সংযোজন, রেললাইন সংস্কার ও সেবার মান বৃদ্ধিকরণ, সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ রাস্তার কাজ দ্রুত বাস্তবায়ন, দেশের অন্যান্য স্থলবন্দরের সাথে মিল রেখে তামাবিল স্থলবন্দরের পোর্ট চার্জ নির্ধারণ, ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গ্রীন চ্যানেলের শতভাগ সুবিধাদি চালুকরণ, সিলেট-চট্টগ্রাম-সিলেট রুটে বিমানের সরাসরি ফ্লাইট চালুকরণ ও শ্রীহট্ট ইকোনমিক জোনের প্রচারণার জন্য রোড-শো’র ব্যবস্থা করা, ভ্যাট কর্মকর্তাদের অভিযানের সময় চেম্বারের প্রতিনিধিকে সাথে রাখা, রমজান মাসে সিএনজি পাম্প সমূহ সার্বক্ষনিক খোলা রাখা সহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেন। এছাড়াও তিনি বলেন, লেবার কোর্ট চট্টগ্রামে থাকায় ব্যবসায়ীরা সময় ও আর্থিক দিক থেকে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন এবং হয়রানির শিকার হচ্ছেন। তাই তিনি ব্যবসায়ীদের কষ্ট লাঘবের জন্য সিলেটে লেবার কোর্ট চালু করার অনুরোধ জানান।

এসময় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ইকোনমিক জোন অথরিটির নির্বাহী চেয়ারম্যান জনাব পবন চৌধুরী, হাইটেক পার্ক অথরিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সচিব হুসনেআরা বেগম, সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহ সভাপতি জনাব মাসুদ আহমদ চৌধুরী, সহ সভাপতি জনাব মোঃ এমদাদ হোসেন, সাবেক সভাপতি ও এফবিসিসিআই এর পরিচালক জনাব সালাহ্ উদ্দিন আলী আহমদ, পরিচালক জনাব মোঃ সাহিদুর রহমান, জনাব আমিরুজ্জামান চৌধুরী, জনাব এহতেশামুল হক চৌধুরী, জনাব আব্দুর রহমান, জনাব ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ, জনাব মোঃ আব্দুর রহমান (জামিল), জনাব হুমায়ুন আহমেদ, জনাব মুজিবুর রহমান মিন্টু প্রমুখ। এছাড়ও এসময় প্রধামন্ত্রীর কার্যালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন