অপশক্তিকে মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের আহ্বান

খাদিমুল কোরআন পরিষদের তাফসির মাহফিল সম্পন্ন

বক্তব্য রাখছেন আল্লামা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী

ডেস্ক রিপোর্ট ॥ বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ, আন্তর্জাতিক মুফসসিরে কোরআন মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী বলেছেন, তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে ফেতনাও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে মুসলমানদের মধ্যে হিংসা, বিদ্বেষ ও বিভেদ বাড়ছে। মহানবী (সা.) এর শান-মান মর্যাদা রক্ষায় এবং নাস্তিক্যবাদী অপশক্তির মোকাবেলায় আমাদের সংগ্রামকে আরো জোরদার করতে হবে।
তিনি শুক্রবার রাতে সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে ৩ দিনব্যাপী খাদিমুল কোরআন পরিষদ সিলেট আয়োজিত ৩দিন ব্যাপী তাফসিরুল কুরআন মহাসম্মেলনের সমাপনী দিনে তাফসির পেশকালে এসব কথাগুলো বলেন।
তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে ইহুদি খ্রিস্টান ও সা¤্রাজ্যবাদী গোষ্ঠীর মোকাবেলায় মুসলিম উম্মাহর ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশী-বিদেশী ইসলাম বিদ্বেষী গোষ্ঠী মুসলমানদের ঈমান আকীদা, তাহজীব তামাদ্দুন ধ্বংস করতে চায়। শিরক বিদআত ও কুফরি কালচার আমাদের সমাজকে কলুষিত করে ফেলেছে। তাই পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের কল্যাণে তাওহিদ ও রিসালতের অনুপম আদর্শ পরিপূর্ণ অনুসরণ করতে হবে। আল্লাহপাক ছাড়া পৃথিবীর সকল জীবকেই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। মৃত্যুর পরেই মুমিন জান্নাতের অধিকারী হয়ে থকেন। তাই সত্যিকারের মুমিন হতে হলে আল্লাহর হুকুমের সাথে নবীজীর তরিকা মতো চলতে হবে। নবীর আদর্শ অনুকরণ ছাড়া কেউ জান্নাতে যেতে পারবে না।
তিনি সিলেটের জৈন্তাপুরের ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, শাহজালাল (রহ.) পূণ্যভূমিতে এ রকম ভাড়াটিয়া ওয়াজিরা ফিৎনা সৃষ্টি করছে। তাদের কারণে নিরীহ আলেম-উলামা ও ছাত্ররা নির্যাতিত হয়েছে। তিনি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।
শেষ দিনে বিভিন্ন অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন খাদিমুল কোরআন পরিষদের সভাপতি মুফতি আবুল কালাম জাকারিয়া, মাওলানা শায়খ মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, মাওলানা শায়খ আব্দুল শহীদ গলমুকাপনী।
খাদিমুল কোরআন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবুল হাসান ফয়সলের পরিচালনায় তাফসির পেশ করেন মাওলানা নুরুল ইসলাম খান, মাওলানা আযহার আলী আনওয়ার শাহ কিশোরগঞ্জ। উপস্থিত ছিলেন জামেয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মোহাম্মদপুর মাদরাসার শায়খুল হাদীস মুফতি মুজিবুর রহমান, রামধা মাদরাসার শায়খুল হাদীস মাওলানা আউলিয়া হোসাইন, মাওলানা শায়খ আব্দুল হান্নান, আলহাজ¦ নাদির খান, মাওলানা খলিলুর রহমান, মাওলানা খয়রুল হোসেন, নূরুল ইসলাম পেশকার প্রমুখ।
আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে ৩ দিনব্যাপী তাফসিরুল কুরআন মাহফির সমাপ্ত হয়।

শেয়ার করুন