হুমায়ুন ফরীদির মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ডেস্ক রিপোর্টঃ মঞ্চ-টিভি-চলচ্চিত্রের শক্তিমান অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদি চলে যাওয়ার ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী আজ। বর্ণাঢ্য এক অভিনয় জীবন ছিল তার। ২০১২ সালে বসন্তের প্রথম দিন (১৩ ফেব্রুয়ারি) পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নেন তিনি। মৃত্যুর আগে ফুসফুসের জটিলতাসহ নানা সমস্যার কারণে তিনি অসুস্থ ছিলেন।

আর তার চলে যাওয়ার পর থেকেই ভক্ত, শুভাকাঙ্খিরা এই দিনে বসন্তের আগমনে উৎফুল্ল থাকার কথা থাকলেও তারা বসন্ত বিরহে থাকেন।

১৯৫২ সালের ২৯ মে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন হুমায়ুন ফরীদি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র ছিলেন তিনি। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে নাট্যচর্চার পুরোধা ব্যক্তিত্ব নাট্যকার সেলিম আল দীনের ঘনিষ্ঠ সহযোগী ছিলেন তিনি। ১৯৭৬ সালে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম নাট্য উত্সব আয়োজনেরও প্রধান সংগঠক ছিলেন ফরীদি।

এ উৎসবের মধ্য দিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ে অঙ্গনে তাঁর ব্যাপক পরিচিতি গড়ে ওঠে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ই তিনি ঢাকা থিয়েটারের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। ঢাকা থিয়েটারের সদস্য হিসেবে বাংলাদেশে একজন মেধাবী ও শক্তিমান নাট্যব্যক্তিত্ব হিসেবে নিজের জাত চিনিয়েছিলেন তিনি। বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সদস্য হিসেবে তিনি গ্রাম থিয়েটারের চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কাজ করেছেন।

আশির দশকের শুরুতে হুমায়ুন ফরীদি প্রথম বিয়ে করেন। হুমায়ুন ফরীদির প্রথম সংসারে দেবযানী নামের এক কন্যা সন্তান রয়েছেন। এরপর তিনি অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফাকে বিয়ে করেন। ২০০৮ সালে সুবর্ণা মুস্তাফার সঙ্গেও তাঁর বিচ্ছেদ হয়ে যায়। দুই ভাই দুই বোনের মধ্যে হুমায়ুন ফরীদি ছিলেন দ্বিতীয়।

ফরীদি অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে আছে, ‘ভণ্ড’ ‘শ্যামল ছায়া’, ‘জয়যাত্রা’, ‘আহা!’, ‘হুলিয়া’, ‘একাত্তরের যিশু’, ‘দহন’, ‘সন্ত্রাস’, ‘ব্যাচেলর’ প্রভৃতি। উল্লেখযোগ্য টিভি নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘নীল নকশার সন্ধানে’ (১৯৮২), ‘দূরবীন দিয়ে দেখুন’ (১৯৮২), ‘ভাঙনের শব্দ শুনি’ (১৯৮৩), ‘ভবের হাট’ (২০০৭), ‘শৃঙ্খল’ (২০১০) প্রভৃতি। বাংলাদেশ

টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ধারাবাহিক ‘সংশপ্তক’ নাটকে ফরীদির অনবদ্য অভিনয়ের কল্যাণে ‘কান কাটা রমজান’ চরিত্রটি তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল।

রাজধানীর মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন হুমায়ুন ফরীদি।

চলতি বছরে মরণোত্তর একুশে পদক পাচ্ছেন হুমায়ুন ফরীদি। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে পদকপ্রাপ্তদের সম্মানজনক একুশে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

শেয়ার করুন