দুই উপনির্বাচনে আ. লীগের প্রার্থী ঘোষণা

ডেস্ক রিপোর্টঃ গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে আফরুজা বারী এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসনের উপ-নির্বাচনে বদরুদ্দোজা মো. ফরহাদ হোসেন সংগ্রামকে মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) গণভবনে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে দলের সংসদীয় বোর্ডের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ ও গাইবান্ধা-১ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন হবে আগামী ১৩ মার্চ। তফসিল অনুযায়ী, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন আগ্রহী প্রার্থীরা। যাচাই-বাছাই হবে ১৬ ফেব্রুয়ারি। আর ২৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মনোনয়ন প্রত্যাহার করা যাবে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মুহাম্মদ ছায়েদুল হক এবং সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফার মৃত্যুতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১  (নাসিরনগর) ও গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জের) আসন দুটি শূন্য হলে উপনির্বাচনের বাধ্যবাধকতা তৈরি হয়।

গাইবান্ধা-১ আসনে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন পাওয়া আফরুজা বারী ওই আসনের প্রয়াত সাংসদ মনজুরুল ইসলাম লিটনের বড় বোন। আর সংগ্রাম ছাত্রলীগের সাবেক নেতা।

জাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আনন্দ শিপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরুজা বারী। তার স্বামী আব্দুল্লাহেল বারী এই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান।

আফরুজার জন্ম ১৯৫৩ সালের ২২ জুন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেছেন তিনি, পরে যুক্তরাজ্যে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ফিন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টিংয়ের ওপর।

আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স হোসেন এন্টারপ্রাইজের মালিক ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম এক দশকেরও বেশি সময় ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

তার জন্ম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে। বাবা-মা দুজনই ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা। তার বাবা ফকরুল হোসেন স্বাধীন বাংলাদেশে জাতীয় রেডক্রস সোসাইটির প্রথম সেক্রেটারি ছিলেন।

ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে পড়ার সময়ই ছাত্রলীগে যোগ দেন সংগ্রাম। এরপর বিভিন্ন পর্যায়ে সংগঠনে দায়িত্ব পালনের পর সর্বশেষ ২০০৬ সাল পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১২ সালে  হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সহ-সম্পাদক।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর করেন ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম।

 

শেয়ার করুন