জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ

জন্ম নিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত ফি আদায়সহ বিভিন্ন  দূর্নীতির অভিযোগ

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের আশারকান্দি ইউনিয়নে জন্ম নিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগসহ ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের দূর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছেন স্থানীয়রা।

রোববার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ঘেরাও করে এলাকাবাসী বিক্ষোভ শুরু করেন। পরে পরিষদের চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে কর্মসুচী স্থগিত করা হয়।

এলাকাবাসী জানান, উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের সচিব তোফাজ্জল হোসেন দীর্ঘদিন ধরে সরকারি নিয়ম ভেঙে জন্ম নিবন্ধন সনদে দুই থেকে তিন হাজার টাকা আদায় করে আসছেন। এছাড়া জন্ম নিবন্ধন কার্ডে ভুল সংশোধন করতে হলে তিনি ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা নেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

ঘেরাও কর্মসুচীতে অংশ নেয়া ওই ইউনিয়নের ২নং ওর্য়াডের মধুপুর গ্রামের মৃত আছদ্দর উল্লার ছেলে খলিলুর মিয়া জানান, ‘আমরা জানি জন্ম নিবন্ধন সনদ নিতে সরকারের নির্ধারিত ফি ছাড়া অতিরিক্ত অর্থ লাগে না। আমার নিজের জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ আনার জন্য আমি ইউনিয়নের সচিবের নিকট গেলে তিনি ৭ হাজার টাকা দাবী করেন। এতে প্রথমে আমি রাজি না হওয়ায় তিনি সনদ দেবেন না বলে জানান। শেষ পর্যন্ত অনেক অনুরোধ করে ৫ হাজার টাকা দিয়ে জন্ম নিবন্ধন সনদ নিয়েছি।’

ঘেরাও কর্মসুচীতে অংশ নেয়া দাওরাই গ্রামের মিলাদ হোসেন জানান, ‘সচির সরকারী আইন লঙ্গন করে মানুষের নিটক থেকে দুর্নীতির মাধ্যমে অতিরিক্ত টাকা নেন। এতে করে এলাকার মানুষ তার বিরুদ্ধে বিক্ষোব্দ হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ ঘেরাও করে। এ সময় পরিষদের চেয়ারম্যান এলাকাবাসী বিষয়টি সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে সচিবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে আশ্বাস্থ করলে এতে আমরা আমাদের কর্মসুচী বাতিল করি।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউনিয়ন পরিষদের সচিব তোফাজ্জেল হোসেনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, দেখা করে এ প্রসঙ্গ কথা বলবেন।

আশারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ আবু ঈমানি জানান, সচিবের বিরুদ্ধে অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের উর্ধ্বতন কৃর্তপক্ষকে জানাবো।

এ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুরের ইউএনও মাসুম বিল্লাহ জানান, লিখিত অভিযোগ পেলে সচিরের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন