হাওর অঞ্চলে ৩৬টি কমিউনিটি ক্লিনিক হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, হাওর অঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে আরও ৩৬টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ভারত সরকারের অর্থসহায়তায় কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আনোয়ার আলী ও পার্টনার ইন ডেভেলপমেন্ট বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম এতে স্বাক্ষর করেন। এই ৩৬ টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণের জন্য ভারত সরকার মোট ৯ কোটি টাকা অনুদান দিবে। ইতোমধ্য সাড়ে ৪ কোটি টাকা পিপিডির নিকট প্রদান করেছে। ক্লিনিক গুলোরে নির্মাণ কাজ আগামী বছর জুন মাসের মধ্য সম্পন্ন হবে।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের প্রতিটি মানুষের স্বাস্থ্য উন্নয়নে ও স্বাস্থ্য সংক্রান্ত প্রত্যেকটি সেবা জনগণের দোরগড়ায় পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে কমিউনিটি ক্লিনিককে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য কাঠামোতে অন্তভুক্ত করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ১৪ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মান করা হয়েছে। ২০১৮ সালের মধ্যে আরো ৪ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মান করার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নেয়া হয়েছে বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিক প্রধানমন্ত্রীর ব্রেন চাইল্ড। তার ভারত সফরের সময় সে দেশের সরকারের সঙ্গে এই ৩৬টি ক্লিনিক নির্মাণের চুক্তি হয়েছিলো। ভারত আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু রাষ্ট্র। ২০৩০ সালের মধ্যে সবার জন্য সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতের যে লক্ষ্য, তা পূরণে এ উদ্যোগ সফল হবে। এতে অন্য বন্ধু রাষ্ট্রগুলোও উৎসাহিত হবে।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সাইক্লোন সেন্টারের আদলে হাওর এলাকায় ৫২০ বর্গমিটার আয়তনের ক্লিনিকগুলো তৈরি হবে। এতে পুরুষ ও নারীদের জন্য আলাদা দু’টি বিশ্রামাগার, স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও পরিবারকল্যাণ কেন্দ্র থাকবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের ৫ টি জেলায় ৩৬ টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মানের জন্য এই সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। জামালপুর, শেরপুর, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া এই ৫ টি জেলায় এই ক্লিনিক নির্মাণ করা হবে।

এ সময়ে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব ফয়েজ আহম্মেদ, অতিরিক্ত সচিব কাজী মহিউল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন