স্কুল শিক্ষক এমিলির বাচাঁর আকুতি

সিলেটের সকাল রিপোর্ট॥ গোয়াইনঘাট উপজেলার বাসিন্দা এমিলি বেগম। একটি সরকারী প্রাইমারী স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা। যাদের বলা হয় মানুষ গড়ার কারিগর। আলোর পথ দেখান যে শিক্ষিকা সেই শিক্ষিকার জীবন প্রদীপ এখন নিভু নিভু। দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে তার। এখন নিরুপায় হয়ে সমাজের হৃদয়বান মানুষের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। জানিয়েছেন বাচাঁর আকুতি।
চিকিৎসকরা বলছেন, তার কিডনী প্রতিস্থাপন সম্ভব। এমিলির তার চার মাসের অবুঝ এক পুত্র সন্তান রয়েছে। ওসমানীনগরের গাভুরটিকি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এই শিক্ষিকা চার মাস ধরে কিডনী রোগে ভুগছেন। তারপর থেকে শয্যাশায়ী। স্বামী সামান্য বেতনের একজন চাকুরীজীবী ছিলেন। এখন স্ত্রীকে নিয়ে চিকিৎসকদের দুয়ারে দুয়ারে ছুটে ক্লান্ত। একে একে হারাচ্ছেন সব কুল। কোনোদিকে দিশা না পেয়ে সমাজের সকল স্তরের মানুষের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। তবে চিকিৎসকরা বলছেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাকে দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়া দরকার। ওসমানীনগর উপজেলার মোবারকপুর গ্রামের মাহমদ আলীর ছোট মেয়ে ও গোয়াইঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বড়নগর গ্রামের আলিম উদ্দিনের স্ত্রী এমিলির চিকিৎসার জন্য পনের লক্ষ টাকা প্রয়োজন। কারণ কিডনী প্রতিস্থাপন করতে তার দরকার উন্নত চিকিৎসা। কিন্তু এমিলির পরিবারের পক্ষে এতো টাকা জোগাড় করা কঠিন। চার মাস আগে কিডনীর সমস্যা শনাক্ত হবার পর ইতিমধ্যে কয়েক লক্ষ টাকা খরচ হয়ে গেছে। এই টাকা জোগাতেও বাড়ির জমি জমা বিক্রি করতে হয়েছে। বর্তমানে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কিডনী বিশেষজ্ঞ ডা. আলমগীর চৌধুরীর তত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছে। এমিলির স্বামী আলিম উদ্দিন জানান, গত চার মাস আগে তার ঘর আলোকিত করে আসে এক পুত্র সন্তান। সন্তান ভূমিষ্টের পর থেকেই কিডনীর সমস্যা দেখা দেয়। এর আগে কিডনীর কোনো সমস্যা ছিলো না। তারপর থেকে প্রতিটি মূহুর্ত কাটছে চরম এক দুশ্চিন্তায়। বর্তমানে তিনি ওসমানী হাসপাতালের চতুর্থ তলার দুই নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ভর্তির পর থেকে প্রতি সপ্তাহে দুইবার ডায়ালাইসিস করতে হচ্ছে। যার জন্য প্রতি সপ্তাহে খরচ হচ্ছে দশ হাজার টাকা। এখন হৃদয়বান মানুষ ছাড়া এই পরিবারের সামনে আর কোনো পথ খোলা নেই। তাই সবার দোয়া এবং ভালোবাসাই অবুঝ শিশুটি তার মাকে ফিরে পেতে পারে। সমাজ পেতে পারে একজন মানুষ গড়ার কারিগরকে। যার হাত ধরে বহু শিশু শিক্ষার আলো পাবার সুযোগ পাচ্ছে।
এমিলিকে বাচাঁতে এই নাম্বারে (০১৭১২ ০৪৬৮৫৭) বিকাশ করা যাবে। কেউ চাইলে সোনালী ব্যাংক বালাগঞ্জ শাখার হিসেবেও (নাম্বার ৯৯৯০০৮০০৮) সাহায্য পাঠাতে পারবে। সবার সহযোগিতায় একজন শিক্ষক বাচঁলে দেশেরও কল্যাণ হবে।

শেয়ার করুন