বালাগঞ্জে শিক্ষকের ৫০ হাজার টাকাসহ জরুরী কাগজপত্র ফেরত দিলেন অটোরিক্সা চালক!

বালাগঞ্জ প্রতিনিধি :: সিলেটের বালাগঞ্জেে লক্কু মিয়া (৩০) নামের এক অটোরিক্সা (সিএনজি) চালকের সততায় ৫০ হাজার টাকাসহ জরুরী কাগজপত্র ফেরত পেলেন দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান। সোমবার সকালে লক্কু মিয়া স্কুলে গিয়ে ঐ শিক্ষককে জিনিসগুলো ফিরিয়ে দেন।

চালক লক্কু মিয়া ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের খাগদিওর খালিয়া গ্রামের রইছ আলী পুত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়- গত রোববার দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষকসহ কয়েকজন শিক্ষক সিলেট শহরে আসার জন্য দয়ামীর মোরারবাজার সড়কে একটি সিএনজি অটোরিক্সায় ওঠেন। এসময় শিক্ষক খলিলুর রহমান ৫০ হাজার টাকা এবং জরুরী কাগজপত্রসহ একটি ব্যাগ অটোরক্সিার পিছনে রেথে দেন। কিন্তু নগরীর কাজিরবাজার সেতু এলাকায় নামার সময় তিনি ব্যাগ নিতে ভুলে যান।

ঘটনার পর চালক লাক্কু মিয়া গাড়ির পিছনে একটি সাদা ব্যাগ দেখতে পান। ব্যাগের ভেতরে ৫০ হাজার টাকাসহ জরুরী কাগজপত্র ছিল। পরবর্তীতে চালক লাক্টাকু মিয়া ব্যাগের প্রকৃত মালিক দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান-ে এ মর্মে নিশ্চিত হন। পরে চালক গতকাল সোমবার স্কুলে গিয়ে ঐ শিক্ষককে টাকা ও মূল্যবান জিনিসসহ ব্যাগটি ফিরিয়ে দেন।

এদিকে অটোরিক্সা চালক লাক্কু মিয়ার সততার খবর উপজেলার চারদিকে ছড়িয়ে পরে। অনেকেই তার সততার খবর শুনে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

গতকাল রাতেই দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমানসহ অনেকেই চালক লাক্কু মিয়ার বাড়ীতে গিয়ে মিষ্টিমুখ করান।

এদিকে টাকা ও জরুরী কাগজপত্র ফিরে পেয়ে শিক্ষক খলিলুর রহমান বলেন, এরকম সততার দৃষ্টান্ত বিরল। তবে কিছু মানুষের সততা অন্য সবাইকে সৎ পথে চলতে উৎসাহিত করে।

শেয়ার করুন