থিয়েটার মুরারীচাঁদের সংস্কৃতি উৎসব: ৭ মার্চের ভাষণ সম্প্রচার

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: বঙ্গবন্ধু বাঙালির প্রেরণা ও শক্তির নাম। জাতির জনকের ৭ মার্চের ভাষণ এ দেশের মানুষের মননে যে শক্তি যুগিয়েছিল তা আজও আমরা অনুভব করি। এখনও এই বক্তৃতা শুনলে রক্তের মধ্যে উদিপ্ত ফুলকি বয়ে যায়। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ মুক্তিযুদ্ধের অদম্য শক্তি।

থিয়েটার মুরারিচাঁদ কর্তৃক এমসি কলেজে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের তথ্যচিত্র প্রদর্শনী এবং ‘বঙ্গবন্ধু : আমাদের ভাবনা’ শিরোনামে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বৃহস্পতিবার। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি অধ্যক্ষ প্রফেসর নিতাই চন্দ্র চন্দ উপরের কথাগুলো বলেন।

এমসি কলেজে শুরু হওয়া দশ দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক উৎসবের তৃতীয়দিনে ছিল বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ প্রদর্শন ও আলোচনা। এর আগে ৫ ডিসেম্বর সম্মেলক কণ্ঠে জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে উৎসবের যাত্রা শুরু হয়। চলবে ১৬ ডিসেম্বর রাত পর্যন্ত।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় থিয়েটারের মহড়া কক্ষে তথ্যচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও থিয়েটারের সম্পাদক প্রফেসর শামীমা চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক মো. তোতিউর রহমান।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন পদার্থবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবুল আনাম মো. রিয়াজ, উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রজত কান্তি সোম, বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুনীল ইন্দু অধিকারী।

এ ছাড়াও বক্তব্য প্রদান করেন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা দিলোয়ার হোসাইন, রাসেল আহমদ, শামীম আহমদ, মুরারিচাঁদ কবিতা পরিষদের প্রতিনিধি রোকসানা পারভীন, এমসি প্রেসক্লাবের সদস্য সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, রোভার স্কাউট প্রতিনিধি সাজিদুল ইসলাম ভুইয়া, মোহনা সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্য জান্নাতুল ফেরদৌস, ডিবেট ফেডারেশনের এ এইচ এম বিপ্লব, বিজ্ঞান কøাবের আহমদ আল মাদানী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে কলেজের বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও ছাত্রনেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সাংস্কৃতিক মিলনমেলায় বিজয়ের মাসে রঙিন হয়ে উঠছে এমসি কলেজ। মঙ্গলবার পুরো ক্যাম্পাস রঙিন সাজে বিজয়ের আভাসে গেয়ে উঠে জাতীয় সংগীত। বিজয়ের ৪৬ বছর ও থিয়েটার মুরারিচাঁদ তাদের ৫ম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে সাংস্কৃতিক উৎসবের আয়োজন করেছে।

শেয়ার করুন