‘ঝরে পড়া শিশুদের নিয়ে সেকেন্ড চান্স এডুকেশনের কাজ প্রসংশনীয়’

সিলেটের সকাল ডেস্ক।। সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ বলেছেন, পরিবারের আর্থিক অসংগতি, (জেন্ডার) বৈষম্য, বসবাসের স্থান, সামাজিক অবস্থা, শিশুশ্রম, জরুরী পরিস্থিতি এসব কারণে বিপুল সংখ্যক শিশু স্কুলের বাইরে থেকে যাচ্ছে। বাংলাদেশে প্রাক-প্রাথমিক স্কুলে না যাওয়া শিশুরাই প্রাথমিকে ঝরে পড়ে বেশি। ঝরে পড়া শিশুদের নিয়ে কাজ করার জন্য ‘সেকেন্ড চান্স এডুকেশন’ আরডিআরএস বাংলাদেশ সংস্থা এসব শিশুদের নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যকে সফল করার জন্য প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের নিয়ে ‘সেকেন্ড চান্স এডুকেশন’-এর কাজ প্রসংশনীয়। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে সমাজের সকলের সহযোগিতা করা উচিত।

মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘সেকেন্ড চান্স এডুকেশন’ প্রকল্পের কার্যক্রম অবহিতকরন সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আশফাক আহমদ এসব কথা বলেন। অবহিতকরন সভায় সভাপতিত্বে করেন সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিরাজাম মুনিরা।

এসময় অন্যান্যে মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সেকেন্ড চান্স এডুকেশন (শিখন রুরাল মডেল) সেভ দ্য চিলড্রেনের প্রজেক্ট ডিরেক্টর আব্দুল মুক্তাদির, সেকেন্ড চান্স এডুকেশন (শিখন রুরাল মডেল) সেভ দ্য চিলড্রেন, সেকেন্ড চান্স এডুকেশন (শিখন রুরাল মডেল) প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর আব্দুল মান্নান, সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জৈন উদ্দিন, সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা. দিলারা বেগম, নাহিদ পারভীন।
এছাড়াও উপজেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার বৃন্দ, ইউপি চেয়ারম্যান বৃন্দ, উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন কর্মকর্তা বৃন্দ বিভিন্ন এনজিও প্রতিনিধি ও সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, আরডিআরএস বাংলাদেশ সেকেন্ড চান্স এডুকেশন প্রকল্প সিলেট জেলার ৬টি উপজেলার (সিলেট সদর, জৈন্তাপুর, জকিগঞ্জ, দক্ষিণ সুরমা, গোলাপগঞ্জ ও ফেঞ্চুগঞ্জ ) প্রায় দশ হাজারের অধিক ঝরে পরা ও অনিয়মিত শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষার সুযোগ করে দিয়েছে।

শেয়ার করুন