ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলে ইন্টারনেট ব্যবহার বিষয় সেমিনার

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, বর্তমানে ইন্টারনেট ছাড়া আমাদের প্রাত্যহিক জীবনযাপন অসম্ভব। সকল মানুষের দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেট ব্যবহার এখন অনস্বীকার্য হয়ে পড়েছে। ইন্টারনেট ছাড়া আমাদের সকল কাজকর্ম অচল।

তিনি বলেন- সকল মানুষ ঘরে বাইরে যেখানেই থাকুন না কেন, ইন্টারনেট ব্যবহার সবারই করতে হয়। ইন্টারনেটের সকল পর্যায়ের কার্যক্রমকে সাথে নিয়েই আমাদেরকে পথ চলতে হবে। নতুবা আমরা পিছিয়ে পড়বো। তবে বর্তমান প্রজন্মের শিশু-কিশোররা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে গিয়ে ইন্টারনেটের খারাপ বিষয়ে আসক্তি বাড়িয়ে তুলছে। যা তাদের বর্তমান ও আগামী জীবনে বিরূপ প্রভাব ফেলবে। তাদেরকে ক্ষতির মুখে পড়তে হবে।

তিনি শনিবার  সকাল ১১টায় সিলেট নগরীর কুমারপাড়াস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলে “ইমপ্যাক্ট অব ইন্টারনেট অ্যান্ড সোশ্যাল মিডিয়া অন চিলড্রেন অ্যান্ড আওয়ার রেসপনসিবিলিটি” শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন- স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ও অভিভাবকদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ইন্টারনেটের কুফল দিকসমূহ সম্পর্কে শিক্ষার্থীদেরকে সচেতন করে তুলতে হবে। তাদের বুঝাতে হবে ইন্টারনেটে ভালো দিক ছাড়াও ভয়ংকর খারাপ দিক রয়েছে।

তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন- এসব খারাপ দিকসমূহ তাদের জীবনকে নষ্ট করে দিতে পারে। সন্তানদের সুন্দর ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে প্রত্যেক অভিভাবকদের উচিত সন্তানের প্রতি খেয়াল রাখা।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন লুটন ইউকের সাবেক মেয়র, লন্ডন লুটন এয়ারপোর্টের ডিরেক্টর ও ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলের চেয়ারম্যান কাউন্সিলর তাহির খাঁন।

সেমিনারে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- রোটারি ইন্টারন্যাশনাল সিলেট জোনের কো-অর্ডিনেটর রোটারিয়ান জাকির আহমেদ চৌধুরী, ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলের অ্যাক্সিকিউটিভ প্রিন্সিপাল সামান্তা চাইল্ডস। সেমিনারে কি-নোট স্পিকার ছিলেন- সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের সাইকিয়াট্রি বিভাগীয় প্রধান অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ডা. আর.কে.এস রয়েল, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মিসবাহ উদ্দিন।

বক্তব্য রাখেন- ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলের স্কুল বিজনেস ম্যানেজার ফারহানা ইসলাম, ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলের ডেপুটি হেড টিচার শসমাদ বেগম প্রমুখ।

অনুষ্ঠান ব্যানিয়ান বৃটিশ স্কুলের শিক্ষক পাপিয়া ইসলাম পপি উপস্থাপনা করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতেই সম্মানিত অতিথিবৃন্দকে ফুল দিয়ে বরণ করা হয়।

শেয়ার করুন