জগন্নাথপুরের নূর আলী হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেফতাদের দাবি

সিলেট প্রেসক্লাবে স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: জগন্নাথপুরের নূর আলী হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেফতাদের দাবি জানিয়েছেন নিহতের স্ত্রী মোছা. লিলু বেগম। শনিবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি জানান। তিনি বলেন, তার স্বামী হত্যা মামলার আসামি জাবেদ ও তার সহযোগীরা বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে মামলা তুলে নিতে হুমকি দিচ্ছে। পাশাপাশি মামলাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে হত্যাকান্ড নিয়ে তারা অপপ্রচার করছে।

লিখিত বক্তব্যে লিলু বেগম বলেন, গত ১৬ সেপ্টেম্বর জাবেদ ও তার সহযোগীরা জগন্নœাথপুরের শ্রীধরপাশা গ্রামের ৪৩ জন নিরীহ মানুষকে গুলি করে আহত করে। আহতদের মধ্যে তার স্বামী নূর আলীও ছিলেন। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাদেরকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১১ দিন পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার স্বামী নূর আলী মারা যান। এ ঘটনায় তার চাচা আবুল খয়ের বাদী হয়ে জগন্নাথপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। যার নং ১০/১৪৮।

তিনি বলেন, তার স্বামীকে হত্যার পর আসামি জাবেদ ও তার সহযোগীরা তাকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখায় এবং নানাভাবে হুমকিও দিয়ে আসছে। এছাড়াও সংবাদ মাধ্যমে ভুল তথ্য দিয়ে হত্যাকান্ড নিয়ে অপপ্রচার করছে। তিনি বলেন, মামলাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে তার আত্মীয়-স্বজনসহ ফয়সলের বিরুদ্ধে জাবেদ গংরা অপপ্রচার চালাচ্ছে। তারা অপপ্রচার করছে যে, নূর আলীর বাড়িতে কাউকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আসলে এটা সত্য নয়। তিনি বলেন, ঘটনার পর থেকেই তিনি বাড়িতেই আছেন। হাসপাতালে ভর্তির দুদিন পর নূর আলীকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে বলে তারা যে অপপ্রচার করেছে এটাও বানোয়াট। তার স্বামী নূর আলী গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন এবং টানা ১১দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তিনি বলেন, শুধু হাতে নয় তার স্বামীর পুরো শরীরই গুলিবিদ্ধ ছিল। যা ডাক্তারি রিপোর্টে উল্লেখ আছে।

এছাড়া তার স্বামী নূর আলীকে ফয়সল মারধর করেছে বলে অপপ্রচার করা হয়েছে। তাও সঠিক নয় বলে তিনি জানান।

লিলু বেগম বলেন, তার স্বামী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। স্বামীকে হারিয়ে নাবলক তিনটি সন্তান নিয়ে অসহায় অবস্থায় আছেন। তিনি তার স্বামী হত্যার বিচার চান এবং জাবেদ ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করতে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে তার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মুতিউর রহমান।

শেয়ার করুন