এক হাজার ডেলিভারী পূর্ণ করলো গোয়াইনঘাটের ডৌবাড়ি পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র

সহস্রতম নবজাতককে সেবা দিচ্ছেন প্যারামেডিকস ফাতেমা বেগম-ছবি সিলেটের সকাল

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধিঃ গোয়াইনঘাটের লেঙ্গুড়া ইউপির ডৌবাড়ি পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে সহস্র ডেলিভারী পূর্ণ করলো উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা মমতা প্রজেক্ট । এর মাধ্যমে মা ও নবজাতকের সেবায় অনন্য দৃষ্টান্ত করলো কেন্দ্রটি।সোমবার এ কেন্দ্রে জেসমিন আক্তারের চতুর্থ সন্তান জন্ম গ্রহণ করে প্যারামেডিকস ফাতেমা বেগমের হাতে। এর মাধ্যমে সহস্র ডেলিভারী পূরণ করলো এ কেন্দ্র। 

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের পরিচালক মোঃ কুতুব উদ্দিন এ বিষয়ে বলেন, স্থানীয় সরকার পরিষদ ও জনসাধারনের সহযোগিতায় সমন্বিত প্রচেষ্টায় এ সাফল্য অর্জন সম্ভব হয়েছে। তিনি এলাকার সকল জনপ্রতিনিধিসহ জনসাধারণকেও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। সেইভ দ্যা চিলড্রেনের পক্ষে ডাঃ লাকী আক্তার, মমতা প্রজেক্টের সাবেক সিলেট জেলা সমন্বয়কারী জামিল আহমদ, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মকর্তা ডাঃ নূর জাহান বেগম হাসি, সিনিয়র ভিজিটর জাহানারা আক্তার, মমতা প্রজেক্টের উপজেলা সমন্বয়কারী মুহিবুর করীমও অনুরুপ মন্তব্য করেন।
ডা: লাকী আক্তার আশা প্রকাশ করে বলেন, এখানকার আরও কয়েকটি কেন্দ্রে কিছুদিনের মধ্যে সহ¯্র ডেলিভারী পূরণ হবে। তবে, প্রকল্প শেষ হবার পর এ ধারাবাহিকতা যাতে বজায় রাখা যায়-সে বিষয়ে সকলকে চিন্তা করতে হবে।
সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে কেন্দ্রটিতে ডেলিভারী সেবা শুরু হয়। ৬ নভেম্বও ‘১৭ পযর্ন্ত ১৫০ গর্ভবতীকে রেফার্ড এবং সহ¯্র জেেনর ডেলিভারী সম্পন্ন হয়েছে।
সোমবার কেন্দ্রটিতে গিয়ে দেখা যায়, ইউপির বলেশ্বর গ্রামের জেসমিন আক্তার (২৮)কেন্দ্রে জন্মদানকারী সহ¯্রতম শিশু কোলে নিয়ে বসে রযেছেন। তাদেও সেবা দিচ্ছেন প্যারামেডিকস ফাতেমা বেগম। জেসমিনের এটা চতুর্থ সন্তান। প্রথম সন্তান ৮ বছর পূর্বে বাড়িতে জন্মের পর পরই মারা যায়। মমতা প্রজেক্টের মাধ্যমে কেন্দ্রে সেবা চালুর পর সকল গর্ভবতীরা এখানে আসছে,সময়মত পরীক্ষা- নিরীক্ষা করাচ্ছে এবং অত্যন্ত যত্ন সহকারে স্বজনদের মত পরিচর্যাপূর্ন পরিবেশে প্রসব ও নবজাতকের সেবা পাচ্ছে। এ জন্য কাউকে কোন অর্থ দিতে হচ্ছে না।
কেন্দ্রে ফতেপর ইউপির লামাপাড়া থেকে আগত বৃদ্ধা মহিলা ফুলবান বলেন, তার পুত্রবধূ সাকেরাকে (৩২) এখানে নিয়ে এসেছেন প্রসবের জন্য। তিনি ঐ কেন্দ্রের সুনাম শুনে এখানে দূর থেকে এসেছেন। তোয়াকুলের লক্ষীনগর গ্রামের মনোয়ারা(৩২) গর্ভকালীন চেক-আপ করতে এসেছেন এই কেন্দ্রে। বেশ কযেকজন মহিলারা জানান, পূর্বে এখানে এই সুযোগ ছিল না। বর্তমানে মমতা ও সরকারের সেবায় গরীব-দুঃখী মানুষ উপকার পাচ্ছে, এখন প্রসব কালীন সময়ে মা-দের কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয় কর্মীদের পরামর্শে ফলে দশ্চিন্তা- –আর্থিক ক্ষতি ও মা শিশুর প্রাণ নাশের ঝুঁকি কমেছে। তারা চান সরকারের সমন্বিত উদ্যোগে মা-শিশুর জীবন রক্ষায় মমতা পজেক্টের মমতার সেবা যেন আরো দীর্ঘায়িত।
ছবি ক্যাপশনঃ গোয়াইনঘাটের ডৌবাড়ি পরিবার কল্যান কেন্দ্রে সহস্রতম মা-নবজাতকের সেবা দিচ্ছেন মমতা পজেক্টের প্যারামেডিকস ফাতেমা বেগম ।

শেয়ার করুন