অর্থ সংকটে ব্যাংক এশিয়া

সিলেটের সকাল ডেস্ক :: নগদ অর্থ সংকট দেখা দিয়েছে ব্যাংক এশিয়ার। প্রায় দুই বছর ধরে কোম্পানিটি নগদ অর্থ সংকটে রয়েছে। চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর শেষে ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থ সংকট রয়েছে ১১ টাকা ৬ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫ টাকা ৬২ পয়সা বেশি।

রোববার এই বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ সভা শেষে প্রকাশিত চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর সময়ে ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি নিট পরিচালন নগদ প্রবাহ (এনওসিপিএস) দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১১ টাকা ৬ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৫ টাকা ৪৪ পয়সা।

পরিচালনা নগদ প্রবাহ বা ক্যাশ ফ্লো ঋণাত্মক হওয়া বোঝায় যে ওই প্রতিষ্ঠানে নগদ অর্থ সংকট রয়েছে। যে প্রতিষ্ঠানের পরিচালন নগদ প্রবাহ যত বেশি ঋণাত্মক, সেই প্রতিষ্ঠানের নগদ অর্থ সংকট তত বেশি।

জানুয়ারি-জুন সময়ে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নিট পরিচালন নগদ প্রবাহ ছিল ঋণাত্মক ৭ টাকা ৩৬ পয়সা, যা ২০১৬ সালের জানুয়ারি-জুন সময়ে ছিল ঋণাত্মক ১২ টাকা ৭ পয়সা।

এদিকে পরিচালন নগদ প্রবাহ ঋণাত্মক হলেও চলতি বছরের প্রথম নয় মাসে ব্যাংকের মুনাফা আগের বছরের তুলনায় বেড়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর সময়ে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ১ টাকা ৪৪ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৭০ পয়সা।

নয় মাসের মতো শেষ তিন মাসেই কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা বেড়েছে। চলতি বছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ব্যাংক এশিয়ার শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৬৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪২ পয়সা।

আয় বাড়ার পাশাপাশি কোম্পানিটির নিট সম্পদ মূল্যের (এনএভি) পরিমাণও কিছুটা বেড়েছে। চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর শেষে প্রতিষ্ঠানটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ২০ টাকা ৫০ পয়সা, যা ২০১৬ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর শেষে ছিল ১৮ টাকা ১৬ পয়সা।

শেয়ার করুন