লালাবাজারে রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সভা অনুষ্ঠিত

সিলেটের সকাল ডেস্ক।। মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর বর্বর নির্যাতন ও গণহত্যার প্রতিবাদে শনিবার দক্ষিণ সুরমার লালাবাজারে মানববন্ধন ও সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কর্মসূচিতে দক্ষিণ সুরমার তেতলী, সিলাম ও লালাবাজার এবং বিশ্বনাথ উপজেলার অলংকারী ইউনিয়নের রোহিঙ্গা দরদী কয়েক হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন। এতে সভাপিতত্ব করেন লালাবাজার ইউনিয়নের বিশিষ্ট মুরুব্বি আব্দুল ওয়াহাব (খোকা খান)।
লালাবাজারের ব্যবসায়ী আমীর আলী ও নজরুল ইসলামের পরিচালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন লালাবাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এম.এস.এ আবসান। লালাবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা নুরুদ্দিন সিদ্দিকীর কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ ইমাদ উদ্দিন নাসিরী।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন লালাবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পীর ফয়জুল হক ইকবাল, তেতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উসমান আলী, অলংকারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাজুমল ইসলাম রুহেল, লালাবাজার ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান খায়রুল আফিয়ান চৌধুরী, লালাবাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন ও সাবেক ইউপি সদস্য ওয়ারিছ আলী।
আরও উপস্থিত ছিলেন বশির মিয়া, আফতাব আলী, মকবুল হোসেন মামুন, আশিক আলী, জাকারিয়া চৌধুরী, এম.এ রহিম, আরশ আলী, জিলা মিয়া, আনোয়ার ইসলাম, লোকমান আহমদ, তুহিন, জিকু প্রমুখ।
এদিকে, নিজগাঁও যুব সমাজ, অভিযাত্রিক পাঠক ফোরাম, শাপলা জুটি স্পোটিং ক্লাব ছামিপুর, সভা সুন্দর স্পোটিং ক্লাব বনগাঁও, ভালকী যুব সমাজ, লতিফিয়া ইসলামি সুন্নি সমাজ কল্যাণ সংস্থা টেংরা, খাজাখালু যুব সংঘ, আশার আলো যুব সংঘ, গকুলপুর যুব সঙঘ, আশার আলো ও আদর্শ সমবায় সমিতি হিলুর নেতৃবৃন্দ বিশাল এ মানববন্ধনে অংশহগ্রহণ করে কর্মসূচিতে প্রাণবন্ত করে তুলেন।
সভায় বক্তারা বলেন, মিয়ানমারে মুসলিম রোহিঙ্গাদের রক্ত নিয়ে হুলিখেলা বিশ্বের মুসলিম আর সইবে না। রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি ফোটা রক্তের দাম মিয়ানমারের খুনি সরকার সূ চি এবং জাতিসংঘকে দিতে হবে। বক্তারা আরও বলেন, মিয়ানমারে মুসলিম নিধন অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। এই অমানবিক গণহত্যা প্রতিরোধে সর্বত্র তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবি। মিয়ানমারের নিরীহ মুসলিমদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য দেশের সর্বস্তরের মানুষের বিবেক জাগ্রত করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও সহযোগিতা। বক্তারা অবিলম্বে এসব গণহত্যা বন্ধের জন্য কার্যকরী প্রদক্ষেপ গ্রহণের জন্য জাতিসংঘের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

শেয়ার করুন