জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দেবেন না অং সান সুচি

সিলেটের সকাল ডেস্ক।। মিয়ানমারের আভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিচ্ছেন না মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর ও নেত্রী অং সান সুচি।

মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইউ কাইওয়া জেয়া অনলাইন দ্য ইরাবতীকে এসব কথা বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এতে উল্লেখ করা হয়, বুধবার অং সান সুচির রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেটির (এনএলডি) একজন মুখপাত্র বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, জাতিসংঘের আসন্ন সাধারণ সম্মেলনে যোগ দেবেন না সুচি। এক্ষেত্রে রাখাইন সহিংসতাকে কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে কিন্তু এটা পরিস্কার বোঝা যায়, সুচির বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিলে তাকে এর মুখোমুখি হতে হবে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ, তুরস্ক রোহিঙ্গা ইস্যুটি ওই অধিবেশনে তোলার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছে। ফলে সুচি সহজেই আঁচ করতে পারছেন ওই সম্মেলনে যাওয়া মানে আগুনের মুখে পড়া। সেখানে তাকে তীব্রভাবে আক্রমণ করা হতে পারে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তাকে দেয়া শান্তিতে নোবেল পুরস্কার কেড়ে নেয়ার জোর দাবি উঠেছে, যদিও তা কেড়ে নেয়ার কোনো রীতি নেই।

গত বছর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে মিয়ানমারের নেত্রী হিসেবে প্রথম বক্তব্য রেখেছিলেন সুচি। তিনি তখন মুসলিম সংখ্যালঘুদের নিয়ে যে সঙ্কট চলছে তা সমাধানে তার সরকারের প্রচেষ্টার পক্ষে কথা বলেছিলেন। এ সমস্যা তিনি সমাধান করতে তো পারেনই নি, উল্টো তাকে যেকোনো সময়ের চেয়ে বাড়িয়ে দিয়েছেন বহুগুন। এর ফলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছেন তিন লাখ ৭০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা। এসব নিয়ে তিনি প্রশ্নবাণে জর্জরিত হতে পারেন, বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে পারেন। এ জন্যই কি তিনি এবার যোগ দিচ্ছেন না! এমনটা উড়িয়ে দিয়েছেন তার দলীয় মুখপাত্র অং শিন। তিনি বলেছেন, অং সান সুচি সমালোচনা বা সমস্যা মোকাবিলা করতে কখনো ভয় পান না। সম্ভবত তিনি দেশে সমস্যা নিয়ে বেশি চাপে আছেন। এর আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছিল, সুচির যোগ দেয়া নিশ্চিত নয়।  দ্য ইরাবতীতে প্রকাশিত খবরে বলা হয় ইউ কাইওয়া জেয়া বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে স্টেট কাউন্সেলর (অং সান সুচি)-এর সামনে রয়েছে অভ্যন্তরীণ ইস্যু। এগুলোতে মনোযোগ দেয়া জরুরি। তার পরিবর্তে মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট। তার সঙ্গে থাকবেন মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ইউ থাউং তুন।

শেয়ার করুন