শিক্ষা ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে মৌলবি আব্দুল করিমের অবদান অতুলনীয়

মদন মোহন কলেজে জন্মবার্ষিকী পালনে বক্তারা

সিলেটের সকাল ডেস্ক ।। উপ-মহাদেশের বিশিষ্ট শিক্ষাচিন্তক ও বহুমাত্রিক কর্মসাধক মৌলবি আব্দুল করিমের ১৫৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে মদন মোহন কলেজের সাহিত্য পরিষদের উদ্যোগে ‘শিক্ষাব্রতী ও কর্মসাধক’ শীর্ষক আলোচনা সভা রোববার সন্ধ্যায় কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ’র সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় নির্ধারিত আলোচকের বক্তব্য রাখেন প্রবীণ শিক্ষাবিদ অধ্যাপক বিজিত কুমার দে, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক গ ক ম আলমগীর, বিশিষ্ট অনুবাদক ও রবীন্দ্র গবেষক মিহির কান্তি চৌধুরী।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, মৌলবি আব্দুল করিম এক ক্ষণজন্মা কর্ম সাধক। উপমহাদেশের শিক্ষাচিন্তা, রাজনৈতিক দর্শন, বহুমাত্রিক সমাজসেবার বিচিত্র অভিজ্ঞতালব্ধ এই মানুষটি আমাদের সমাজে বর্তমান প্রজন্মের কাছে প্রায় অপরিচিত। তার শিক্ষা দর্শন, কর্মভাবনা ও রাজনৈতিক চিন্তা সমকালীন ভারতবর্ষ বিশেষত: বাংলা-বিহার-উড়িষার এক যুগান্তকারী অধ্যায়ের সূচনা করেন।

১৮৬৩ সালে সিলেট নগরীর পাঠানটুলা মহল্লায় জন্মগ্রহণকারী মৌলবি আব্দুল করিম তৎকালীন সময়ে অনেক প্রতিবন্ধকতা সহ্য করে সম্প্রদায় ও দেশের জন্য কল্পনাতীত কল্যাণ সাধন করেন। শত বছর পূর্বে তার মতো শিক্ষাব্রতীদের প্রচেষ্টায় বাংলা-বিহার-উড়িষায় শিক্ষা এবং রাজনীতিতে মুসলমান সমাজ অসাধারণ উন্নতি সাধন করেন। শিক্ষা ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে বাঙালি মুসলমানের জাগরণ ও প্রাগ্রসর চিন্তার পেছনে মৌলবি আব্দুল করিমের অবদান অনস্বীকার্য। বক্তারা নতুন প্রজন্মের কাছে মৌলবি আব্দুল করিমের দর্শন উপস্থাপনে উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান।

অধ্যাপিকা হুসনে আরা কামালীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন দৈনিক উত্তরপূর্ব এর প্রধান সম্পাদক আজিজ আহমদ সেলিম, দৈনিক শুভ প্রতিদিন প্রধান সম্পাদক লিয়াকত শাহ ফরিদী, নাট্য ব্যক্তিত্ব আশুতোষ ভৌমিক বিমল। ধন্যবাদ বক্তব্য রাখেন কলেজ শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক উজ্জ্বল দাস। শুরুতে মৌলবি আব্দুল করিমের জীবনাদর্শন তুলে ধরেন অনুষ্ঠানের সভাপতি কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ।

শেয়ার করুন