‘প্রিন্সিপাল মজির তাঁর কর্মদক্ষতা আর কর্তব্যনিষ্ঠার মধ্যে স্মরনীয় হয়ে থাকবেন’

সিলেটের সকাল ডেস্ক ।। সাবেক সংসদ সদস্য ও শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়ার প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, সভ্যতা সংস্কৃতির সমস্ত কিছুর মূলে ছিল নবী রসুলদের শিক্ষা। ভালোর সব কিছু হচ্ছে নবীদের শিক্ষা। তিনি বলেন, জামেয়া গতানুগতিক কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নয়। নৈতিক ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বিত ভিন্নধারার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তিনি বৃহস্পতিবার জামেয়ার সদ্য বিদায়ী প্রিন্সিপাল মজির উদ্দিন, প্রভাষক খালেদুর রহমান ও সহকারী শিক্ষক সুলতান আহমদের বিদায় সংবর্ধনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

শাহজালাল জামেয়ার গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সিনিয়র শিক্ষক মুহাম্মাদ মুহিব আলী ও প্রভাষক আব্দুল্লাহ আল মামুনের যৌথ উপস্থাপনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভাইস প্রিন্সিপাল গোলাম রব্বানী। দশম শ্রেণির ছাত্র জারির আহমদের কুরআন তেলাওয়াতের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সুচনা হয়। বিদায়ী প্রিন্সিপালে উদ্দেশে মানপত্র পাঠ করেন প্রভাষক আব্দুল্লাহ আল মামুন, বিদায়ী শিক্ষকদের উদ্দেশে মানপত্র পাঠ করেন শিক্ষক প্রতিনিধি প্রভাষক আব্দুল মোতালেব।

প্রধান অতিথি মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী বিদায়ী প্রিন্সিপাল মজির উদ্দিনের দক্ষতা ও কর্তব্যনিষ্ঠার প্রশংসা করে আশা প্রকাশ করেন তার উত্তোরসূরী শিক্ষক , দায়িত্বশীলগন জামেয়াকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন।

বিদায়ী প্রিন্সিপাল মজির উদ্দিন বলেন শিক্ষাকে নিজের জীবনের মিশন হিসেবে গ্রহন করে জামেয়াতে কর্ম জীবন শুরু করেন। তিনি আশাপ্রকাশ করে বলেন প্রবাস জীবনে দেশর পরিচয়ে বেঁচে থাকতে চান। দায়িত্বপালন শেষে বিদায় সহকর্মী, সাবেক ও বর্তমান ছাত্রছাত্রীদের ভালোবাসা আর সহযোগিতার কথা উল্লেখ করে তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান বলেন, পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এমন দক্ষ ও সাহসী প্রতিষ্ঠান প্রধান তিনি খুব কমই দেখেছেন।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদ, মডেল হাইস্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ, দি সিলেট ইসলামিক সোসাইটির এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারী জাহেদুর রহমান চৌধরী, জামেয়ার সহকারী প্রধান শিক্ষক মোস্তফা কামাল, উপশহর হাইস্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমান, সহকারী অধ্যাপক জাফর ইকবাল মাহমুদ, সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা আব্দুল জলিল, প্রভাষক এইচ এম ফারুক।

সাবেক ছাত্র সহকারী অধ্যাপক ডা: হোসাইন আহমদ, সিনিয়র শিক্ষিকা ফরিদা বেগম, ৯২ ব্যাচের সাবেক ছাত্র ডা: আব্দুল হাফিজ, সাবেক ছাত্র ওমর শরীফ নোমান। অনুষ্ঠানের শেষে বিদায়ী প্রিন্সিপাল ও শিক্ষকদের প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষিকা, বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীরা বিপুল উহার সামগ্রী ও ফুলের তোড়া প্রদান করেন।

শেয়ার করুন