ঢাকায় নিযুক্ত বৃটিশ হাই কমিশনারকে সংবর্ধনা দিল বিসিসিআই

সিলেটের সকাল ডেস্ক।। বৃটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী (বিসিসিআই) ‘এর উদ্যোগে আজ ১৯জুলাই বৃহস্পতিবার লন্ডনে ঢাকায় নিযুক্ত বৃটিশ হাই কমিশনার ও বিসিসিআই পেট্রন এলিসন ব্লেইক’কে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

যুক্তরাজ্যের অর্থনৈতিক ক্যাপিটাল ক্যানারী ওয়ার্ফে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিসিসিআই কর্মকর্তা, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ওকমিউনিটি নেতৃবন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট এনাম আলী এমবিই’র সভাপতিত্বে ও লন্ডন রিজিয়নের প্রেসিডেন্ট বশির আহমেদ’র পরিচালনায় অন্যানের মধ্যে বক্তৃতা করেন, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, ড. মশিউর রহমান, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দিপু মনি, বিসিসিআই’র  সাবেক প্রেসিডেন্ট শাহগীর বখ্ত ফারুক ও ড. ওয়ালী তসর উদ্দীন, ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার খন্দকার মোহাম্মদ তালহা, আহমেদুস সামাদ চৌধুরী জেপি, বিসিসিআই নর্থ রিজিয়নের প্রেসিডন্ট মাহতাব মিয়া, বিসিসিআই ডাইরেক্টর জেনারেল সাইদুর রহমান রেনু।

বৃটিশ হাই কমিশনার এলিসন ব্লেইক সম্মাননার জবাবে বলেন, বিসিসিআই দু’দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে বিপুল অবদান রেখে চলেছে। এন আরবি’রা উভয় দেশের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে বৃটিশ হাই কমিশনার এলিসন ব্লেইক আসন্ন প্রবাসী কনভেনশনের সাফল্য কামনা করে বলেন, বাংলাদেশ বিনিয়োগ ও টু্রিজম উভয়ের জন্যই একটি অনবদ্য দেশ। রুশনারা আলীকে পুনরায় বাংলাদেশের জন্য বাণিজ্য দূত নিয়োগের কথা উল্লেখ করে দুইদেশের বাণিজ্য ভারসাম্য গড়ে তুলতে বিসিসিআই’কে আরো কার্যকর ভুমিকা রাখার আহবান জানান।

ব্রেক্সিট ইস্যুতে উদ্বেগ সম্পর্কে বৃটিশ সরকারের সচেতনতা রয়েছে উল্লেখ করে বলেন, ইউরোপে বাংলাদেশী পণ্যের যে ডিউটি ফ্রী সুবিধা রয়েছ তা অব্যাহত রাখার প্রশ্নটি গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, বৃটেন ইউরোপের মধ্যে বাংলাদেশী পণ্যের দ্বিতীয় প্রধান ভোক্তা দেশ। এটা নতুন প্রেক্ষাপটেও গুরুত্ব পাবে।

ভিসা প্রসেসিংয়ের ক্ষেত্রে বর্তমান জটিলতার বিষয়ে তার সচেতনতার কথা উল্লেখ করে বলেন, দিল্লী থেকে ঢাকায় স্থানান্তরে কিছু করণীয় না থাকলেও ঢাকার কর্মকর্তারা যাতে তাদের লোকাল জ্ঞানকে এক্ষেত্রে আরো বেশী কাজে লাগাতে পারে, সে চেষ্টা তিনি অব্যাহত রাখবেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী নাগরিকত্ব আইনের খসড়া নিয়ে উদ্বেগের জের ধরে সরকারের উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে বলেন, প্রবাসীদের নাগরিকত্ব ও মর্যাদা অক্ষুন্ন থাকবে। অক্টোবর সিলেটে গ্লোবাল এনআরবি বিজনেস কনভেনশন ২০১৭ সফল করতে সরকারের সর্বাত্মক সহযোগীতার কথা উল্লেখ করে বলেন, কনভেনশনে প্রবাসীদের স্বাগত জানাতে তিনি নিজে উপস্থিত থাকবেন।  ড. মশিউর রহমান ও ডা. দিপু মনি মুক্তিযুদ্বে বিলেত প্রবাসীদের অবদানের কথা উল্লেখ করে এনআরবি বিজনেস কনভেনশন প্রবাসীদের স্বীকৃতি ও বাংলাদেশের উন্নয়নে প্রবাসীদের অংশগ্রহণকে আরো সম্ভাবনা তৈরী করবে।

অনুষ্ঠানে সম্প্রতি ডেভিড ক্যামেরুনের বাংলাদেশ সফর এবং ২১-২৩ অক্টোবর সিলেটে গ্লোবাল এনআরবি বিজনেস কনভেনশন ২০১৭- এর উপর নির্মিত দুটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। বিসিসিআই প্রেসিডন্ট অক্টোবরের কনভেনশনে সকলকে অংশ নেয়ার আহবান জানান।

শেয়ার করুন