গ্রেফতার আতংকে কর্মকর্তা শূন্য সুনামগঞ্জ পাউবো অফিস

আল আমিন, সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) অফিসে গ্রেফতার আতংক বিরাজ করছে। সোমবার বিকেল তিন টার দিকে সরজমিনে  গিয়ে দেখা গেছে পাউবো অফিসে ২ জন উপ-সহকারী প্রকৌশলী ও ২-৩ জন কর্মচারী ছাড়া কেউ নেই। এরাও আতংকে আছেন। অফিসে বর্তমানে থাকা ৪ জন এসডি’র ১ জন এবং ১০ জন উপ-সহকারী ৮ জন দুদকের মামলায় পড়ে পলাতক থাকলেও অন্যরাও রয়েছেন আতংকে।
হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বরখাস্তকৃত নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আফছার উদ্দীন, সিলেট সার্কেলের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম সরকার, সিলেট উত্তর পূর্বাঞ্চলের সাবেক অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুল হাই, সুনামগঞ্জের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী দিপক রঞ্জন দাস, খলিলুর রহমান, সেকশন কর্মকর্তা মো. শহিদুল্লা, ইব্রাহিম খলিল উল্লাহ্ খান, খন্দকার আলী রেজা, মো রফিকুল ইসলাম, মো. শাহ আলম, মো. বরকত উল্লাহ ভুঁইয়া, মো. মাহমুদুল করিম, মো. মোসাদ্দেক, সজীব পাল ও মো. জাহাঙ্গীর হোসেন এবং ৪৬ জন ঠিকাদার আসামী হয়েছেন।
কর্মকর্তাদের মধ্যে ১১ জন সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডে কর্মরত ছিলেন। এই ১১ জনের মধ্যে নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে দুদক। অন্যরা পলাতক রয়েছেন।
অফিসে থাকা উর্ধ্বতন হিসাব সহকারী মো. দেলোয়ার হোসেনসহ অন্যান্য কর্মচারীরা বলেন, অনেকেই ঈদের ছুটিতে রয়েছেন। এখনো আসেননি। দুদকের মামলার প্রভাবও পড়েছে অফিসে।
নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বক্কর সিদ্দিক ভূইয়া বলেন, এই অবস্থায় সুনামগঞ্জ অফিসের ১০ জন উপ-সহকারী প্রকৌশলীর ৮ জন দুদকের মামলায় আসামী হওয়ায় সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন। ১ জন উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলীও মামলার আসামী হওয়ায় সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন।
তবে অন্য যারা আছেন, তাদের মধ্যেও উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী লিংকন সরকার, অনিক সাহা ফোন ধরছেন না।

শেয়ার করুন