আরভিনের সেঞ্চুরিতে শক্ত অবস্থানে জিম্বাবুয়ে

স্পোর্টস ডেস্ক : শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টের প্রথম দিনের নায়ক জিম্বাবুয়ের ক্রেইগ আরভিন। কলম্বোতে সিরিজের একমাত্র টেস্টের প্রথম দিনেই সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে দলকে বিপদ থেকে টেনে তুলেছেন তিনি। তার এমন দুর্দান্ত ব্যাটিং নৈপুণ্যে লঙ্কানদের বিপক্ষে ৮ উইকেটে ৩৪৪ রান তুলে দিন শেষ করেছে সফরকারীরা। দিনশেষে ১৫১ রানে অপরাজিত আরভিন।

৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ৩-২ ব্যবধানে জিতে উজ্জীবিত জিম্বাবুয়ে একমাত্র টেস্টে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্বান্ত নেয়। শুরুটা ভালো করতে পারেনি সফরকারীরা। ৩৮ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে জিম্বাবুয়ে। দুই ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ১৯ ও রেগিস চাকাভা ১২ রান করে শ্রীলঙ্কার বুড়ো বাঁ-হাতি স্পিনার রঙ্গনা হেরাথের শিকার হন।

৩ নম্বরে নামা তারিসাই মুসাকান্দা ৬ রান করে শ্রীলঙ্কার ডান-হাতি পেসার লাহিরু কুমারার বলে আউট হন। ১৩ ওভারের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে যায় জিম্বাবুয়ে। চতুর্থ উইকেটে জুটি বেঁধ সেই চাপ দূর করার চেষ্টা করেছিলেন আরভিন ও সিন উইলিয়ামস। ভালোই এগোচ্ছিলেন তারা। কিন্তু দলীয় ৭০ রানে বিচ্ছিন্ন হয়ে যান আরভিন-উইলিয়ামস। জুটিতে ৩২ এবং ব্যক্তিগত ২২ রান করে আউট হন উইলিয়ামস।

তবে সিকান্দার রাজার সাথে পঞ্চম উইকেট জুটি গড়ে সফল হয়েছেন আরভিন। বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে খেলে দলের স্কোর দেড়শ পার করেন তারা। কিন্তু এরপরই ঘটে ছন্দপতন। ম্যাচের ৪০তম ওভারে আক্রমণে এসেই আরভিন-রাজার জুটিতে ভাঙ্গন ধরান জিম্বাবুয়ের প্রথম দুই উইকেট শিকারী হেরাথ। এতে দেশের মাটিতে ৪৪তম ম্যাচে নিজের ২৫০ উইকেটও পূর্ণ করেন তিনি। দেশের মাটিতে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারে পঞ্চমস্থানে আছেন হেরাথ।

হেরাথের শিকার হবার আগে ২টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪৭ বলে ৩৬ রান করেন রাজা। আরভিনের সাথে ১৯ ওভারে ৮৪ রানের জুটি গড়েছিলেন তিনি। দলীয় ১৫৪ রানে পঞ্চম উইকেট হারানোর পরও ভড়কে যায়নি জিম্বাবুয়ে। কারণ ব্যাট হাতে অবিচল ছিলেন আরভিন। তাকে দেখে সাহস পান উইকেটরক্ষক পিটার মুর। আরও একটি বড় জুটির স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন দুজন। তাদের স্বপ্নে বাঁধা হয়ে দাঁড়ান অ্যাশলে গুনারত্নে। ১৯ রানে থাকা মুরকে আউট করে শ্রীলঙ্কাকে খেলায় ফেরান এই মিডিয়াম পেসার।

এরপর দলকে বড় জুটির স্বাদ দিয়েছেন আরভিন ও ম্যালকম ওয়ালার। সেই সাথে টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন ১২তম ম্যাচ খেলতে নামা আরভিন। ২০১৬ সালের আগস্টে বুলাওয়েতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিটি পেয়েছিলেন তিনি

আরভিনের সেঞ্চুরির কিছুক্ষণ পরই আউট হন ওয়ালার। দারুন জমে উঠা জুটিতে ভাঙ্গন ধরান হেরাথ। ৪টি চারে ৩৯ বলে ৩৬ রান করা ওয়ালারকে নিজের চতুর্থ শিকার বানান হেরাথ। ওয়ালারের বিদায়ের পর উইকেটে গিয়ে আরভিনকে বেশিক্ষণ সঙ্গ দিতে পারেননি অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার। মাত্র ১৩ রান করে আউট হন তিনি।

তবে দশ নম্বরে ব্যাট হাতে নামা ডোনাল্ড তিরিপানোকে নিয়ে ভালোভাবেই দিন শেষে করে ১৫১ রানে অপরাজিত থাকেন আরভিন। তার ২৩৮ বলের ইনিংসে ছিল ১৩টি চার ও ১টি ছক্কা মার। অন্যপ্রান্তে ৪৫ বলে ২৪ রান করে অপরাজিত তিরিপানো। শ্রীলঙ্কার হয়ে রঙ্গনা হেরাথ ১০৬ রানে ৪ উইকেট নেন।

শেয়ার করুন