ক্রেতাদের ভিড় এখন জুতার দোকানে

ছবি: এইচ এম শহিদুল ইসলাম

সিলেটের সকাল রিপোর্ট ।। ঈদের নতুন পোষাক কেনা শেষ। এবার কিনতে হবে মানানসই জুতা। তাই ক্রেতারা এখন ছুটছেন জুতার দোকানে। বেছে নিচ্ছেন পছন্দের জুতা। বিশেষ করে নিজের কাপড়ের রঙের সাথে মিল রেখে জুতা বেছে নিতে দোকানগুলোতে ভিড় করছেন তরুণ-তরুণীরা। পিছিয়ে নেই বয়স্ক কিংবা শিশুরাও। ফলে সিলেটের জুতার দোকানে ক্রেতার উপচে পড়া ভিড়ে ব্যস্ততা বেড়েছে বিক্রেতাদেরও।

নগরীর ব্লুওয়াটার, সিটি সেন্টার, আল মারজান, আল হামরা, মিলেনিয়াম মার্কেট, হাসান মার্কেট, করিমউল্লাহ মার্কেটসহ জিন্দাবাজার এলাকার জুতার দোকানগুলোতে সংগ্রহ বেশি থাকায় পছন্দের জুতা কিনতে ছোট-বড় সকলেই ভিড় করছেন এসব মার্কেটের দোকানে। তাছাড়া বাটা, লোটো, এপেক্স, অরিয়ন, বে-এম্পোরিয়াম, জনতা, এক্সিলেন্ট, পায়েপায়ে, জেনিসসহ নামী দামী ব্রান্ডের জুতার শো-রুমগুলোতেও ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে।

এবছর নিত্য নতুন ডিজাইনের জুতা এনেছেন পাদুকা ব্যবসায়ীরা। দেশি জুতার পাশাপাশি চিন এবং থাইল্যান্ড থেকে আমদানী করা জুতারও কালেকশন রয়েছে এবারের ঈদ বাজারে। তাছাড়া জুতা প্রস্তুতকারী বিভিন্ন নামিদামি ব্রান্ডগুলো ক্রেতাদের জন্য নিজস্ব ডিজাইনের নতুন জুতার কালেকশন নিয়ে এসেছেন।

ব্যবসায়ীরা জানান, বছরের অন্যসময় হালকা জুতা বেশি বিক্রি হলেও ঈদে ঝমকালো রঙয়ের জুতার দিকে মূলত ক্রেতাদের আকর্ষণ বেশি থাকে। ফলে সেভাবেই কালেকশনে রেখেছেন তারা। এবার পাম্প শু, লেডিস স্যান্ডেল, হাইহিল, সেমিহিল ছাড়াও ভেলভেটসহ নানা ধরনের কাপড়ের বাহারি স্যান্ডেল পাওয়া যাচ্ছে।

আমদানি করা মেয়েদের জুতায় রয়েছে উজ্জল রঙ পুঁতি ও পাথরের কাজ। এসব জুতা সর্বনি¤œ ৫০০টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৪ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে বিদেশি ব্রান্ডের জুতা বিক্রি হচ্ছে তিন হাজার থেকে শুরু করে ১৫ হাজার টাকায়।

লোটো জিন্দাবাজার আউটলেটের বিক্রয়কর্মী জানান,‘ক্রেতাদের চাহিদা মাথায় রেখে এবারের ঈদে নতুন কিছু কালেকশন নিয়ে আসা হয়েছে। বিশ রমজানের পর থেকে ক্রেতাদের ভিড় ভেড়েছে। বিক্রিও ভালো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এবারে ঈদে মেয়েদের পছন্দের জুতার সঙ্গে সোল ও হিলে বৈচিত্র আনার চেষ্টা করা হয়েছে। মেয়েদের দেশি জুতার মধ্যে ফ্ল্যাট ফিতার বাহারি রঙয়ের স্যান্ডেল ও কাভারওয়ালা স্যান্ডেল এবারও ভালো চলছে। এগুলোর দাম সর্বনিম্ন ৬৫০ থেকে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দোকানীরা।

একটি ব্রান্ডের শো-রুমে জুতা কিনতে আসা কলেজ ছাত্র এহসানুল হক মুন্না জানান, ‘দাম একটু বেশি হলেও টেকসই হবে চিন্তা করে ব্রান্ডের জুতাই কিনেছি।’

টিলাগড় থেকে ঈদের কেনাকাটা করতে আসা মেহনাজ জেরিন বলেন, ‘পোশাকের সাথে মিলিয়ে জুতা পরতে আমার ভালো লাগে। তাই পোষাকের সাথে মিলিয়ে জুতা কিনবো। তাই দোকানগুলো ঘুরে দেখছি।’

শেয়ার করুন