রিট খারিজ, সিলেট চেম্বারের নির্বাচন আয়োজনে আইনী কোন বাধা নেই

downloadসিলেটের সকাল রিপোর্ট ।। সিলেট চেম্বারের নির্বাচনী তফসিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়েরকৃত রিট পিটিশন নম্বর- ৬৯১৩/২০১৭ এবং ভোটার তালিকা সম্পর্কিত বিষয়ে দায়েরকৃত আর্বিট্রেশন মামলা নম্বর- ০৭/২০১৭ নির্বাচনের পূর্বে নিষ্পত্তি না হওয়াকে চ্যালেঞ্জ করে নির্বাচন স্থগিত চেয়ে দায়েরকৃত রিট পিটিশন নম্বর- ৬৭৬০/২০১৭ পিটিশনদ্বয় খারিজ করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি মোহাম্মদ সৈয়দ দস্তগীর হোসেন এবং বিচারপতি আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ রিটকারীর আইনজীবীকে শুনানীঅন্তে উপস্থাপিত হয়নি মর্মে তা খারিজ করে দেন। একারণে নির্বাচন আয়োজনে আইনী কোন বাধা রইলো না। সিলেট চেম্বারের নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান বিজিত চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানান, রিট আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়া সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির ২০১৭-১৯ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন আয়োজনে আইনি কোন বাধা নেই। এজন্য ঘোষিত তফশীল অনুযায়ী শনিবার নগরীর ধোপা দিঘীর পাড়স্থ ইউনাইটেড সেন্টারে ভোটগ্রহণ করা হবে। চার ক্যাটাগরির বিভিন্ন পদে সর্বমোট ২২ জন পরিচালক আগামী দুই বছরের জন্য নির্বাচিত হবেন।’

সিলেট চেম্বার সূত্র জানায়, ৪টি ক্যাটাগরির মধ্যে অর্ডিনারী শ্রেণীর ১২ টি পরিচালক পদ, এসোসিয়েট শ্রেণীর ৬টি, ট্রেড গ্রুপের ৩টি এবং টাউন এসোসিয়েশন ১টি পরিচালক পদ রয়েছে। নির্বাচনের মোট ভোটার সংখ্যা ১৮৬০। শুক্রবার বিকাল ৩ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত চেম্বার কার্যালয় থেকে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন। এছাড়াও ভোটারগণ নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে নির্ধারিত স্থান থেকে ভোটার আইডি কার্ড গ্রহণ করে ভোট দিতে পারবেন।

উল্লেখ্য, এনামূল কুদ্দুস চৌধুরীসহ বর্তমান চেম্বার পরিচালনা পর্ষদের ৫ জন পরিচালক ভোটার তালিকায় অনাস্থা জানিয়ে এফবিসিসিআইর আরবিট্রেশন বোর্ডে আপিল করেছে। গত ৩ মে শুনানী হলেও আরবিট্রেশনের সিদ্ধান্ত এখনো জানানো হয়নি। ফলে তারা উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করলে তা খারিজ করে দেন আদালত।

শেয়ার করুন