রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রবাসী দিবস ঘোষণার দাবি

1 (2)সাজু আহমদ, লন্ডন থেকে: বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি মসজিদের মাইক থেকে শুরু করে, রাস্তাঘাট, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, মুক্তিযুদ্ধ থেকে যে কোন ও জাতীয় দুর্যোগে প্রবাসীদের অবদান অনস্বীকার্য্।
তাই প্রবাসীদের জন্য বছরে একদিনের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রবাসী দিবস ঘোষণার উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকে।
সম্প্রতি বিলেতের পূর্ব লন্ডনের দি অট্রিয়াম সেন্টারে এনআরবি গ্লোবাল বিজনেস কনভেনশন ২০১৭ লাঞ্চিং অনুষ্ঠানে পৃথিবীর প্রায় ২৩টি দেশ থেকে আসা বক্তারা উপরোক্ত মতামতট্নি। ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স (বিবিসিসিআই) আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘ এ বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ডঃ এ কে আব্দুল মোমেন।
অনুষ্ঠানে বিবিসিসিআই এর সভাপতি এনাম আলী এমবিই বলেন, প্রবাসীদের দেশে অনাবাসী, প্রবাসীসহ বিভিন্ন নামে ডাকা হয়। আর বিলেতে বলা হয় ইমিগ্র্যান্ট, এশিয়ানসহ বিভিন্ন নামে। এখন সময় এসেছে দেশে বিদেশে আমাদের পরিচয় দৃঢ় করার। প্রবাসীদের ইতিহাস তুলে ধরে তিনি বলেন- সিলেট হচ্ছে প্রবাসীদের রাজধানী। যখন এদেশে সাহায্য করার কেউ ছিল না, থাকার কোন জায়গা ছিল না, তখন আমাদের পূর্ব পুরুষরা সংগ্রাম করে টিকে ছিলেন বলে আজ আমরা এই পর্যায়ে আসতে পেরেছি। তিনি বছরে একদিন প্রবাসী দিবস গড়ে তোলার ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
666অনুষ্ঠানের বিভিন্ন পর্বে ভাগ হয়ে চেম্বার এর পরিচালকরা সারা পৃথিবী থেকে আগত প্রতিষ্টিত প্রবাসীদের সাথে বাংলাদেশের সামাজিক অগ্রগতি, মুক্তিযুদ্ধ এবং অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান শীর্ষক আলোচনায় মিলিত হন।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ডঃ মোমেন অচিরেই সিলেট-লন্ডন সরাসরি ফ্লাইট, সিলেটে বঙ্গবন্ধু পার্ক সহ বাংলাদেশের উন্নয়ন এর বিভিন্ন ফিরিস্তি তুলে ধরেন। তিনি সিলেটে আসন্ন
এনআরবি গ্লোবাল বিজনেস কনভেনশন২০১৭ এর ব্যাপারে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
অনুষ্ঠানে জানা যায়- চলতি বছরের ২১ অক্টোবর থেকে এক সপ্তাহব্যাপী সিলেটের আবুল মাল আব্দুল মুহিত স্পোর্টস কমপ্লেক্স-এ এনআরবি গ্লোবাল বিজনেস কনভেনশন ২০১৭ অনুষ্ঠিত হবে।
সিলেট চেম্বার এর যৌথ অংশগ্রহণ ও সিলেট প্রেসক্লাব এর সহযোগিতায় বিবিসিসি’র উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ইতিমধ্যে ইতালি, ফ্রাঞ্চ, ডাচ, জার্মান, আমেরিকা, রাশিয়া, কাতার, হল্যান্ড, বেলজিয়াম, পর্তুগাল থেকে বাংলাদেশী ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো অংশহগ্রহণ এর ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে। অনুষ্টানে সারা পৃথিবীর প্রবাসীদের বাংলাদেশে ব্যবসার সম্ভাবনা তুলে ধরার পাশাপাশি সারা বিশ্ব মিডিয়ার সামনে দেশের সম্ভাবনাসমূহ তুলে ধরার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
লন্ডনের অনুষ্ঠানে সারা বিলেতের আনাচে কানাচে থেকে বাঙালি মেয়র, কাউন্সিলর, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও ব্যবসায়ীদের আগমনে অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশিদের এক মিলন মেলায় পরিণত হয়েছিল। আর সাথে রসদ যুগেযেছিলেন সারা পৃথিবীর আরও বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।

শেয়ার করুন