মোবাইল ফোনে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চাঁদা আদায়, সাভার থেকে আসামী গ্রেফতার

IMG_6241সিলেটের সকাল রিপোর্ট ।। মোবাইল ফোনে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিকাশ, এসএ পরিবহন ও সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পনের লাখ ত্রিশ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়ার পর অবশেষে পুলিশের খাঁচায় ধরা পড়লেন হুমকিদাতা।

ঢাকার সাভারে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসে চাঁদার আরো এক লাখ উত্তোলনের সময় পুলিশের পাতা ফাঁদে আটকা পড়েন মাঈন উদ্দিন বাবুল (৪২) নামের ওই চাঁদাবাজ। এসময় তার কাছ থেকে হুমকি প্রদানের কাজে ব্যবহৃত মোবাইল সেট, সীম ও ইতিপূর্বে বিভিন্ন সময়ে টাকা উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত ০২টি সীম উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত বাবুল মাদারীপুর জেলার রাইজর থানার লুন্দি ইশিবপুরের আব্দুস সালামের ছেলে। বর্তমানে সাভারে জামসিং জয়পাড়া এলাকায় বসবাস করত।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসা জানান, ‘দক্ষিণ সুরমার নছিবা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রোটারিয়ান জনাব আব্দুল লতিফকে গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ধারী কতিপয় চাঁদাবাজ মোবাইলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বিভিন্ন সময়ে প্রায় সাড়ে পনের লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়।

উক্ত বিষয়ে তিনি দক্ষিণ সুরমা থানার সাধারণ ডায়রী নং-২৫২, তাং-০৬/০৪/২০১৭খ্রিঃ করলে সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ও এসআই(নিরস্ত্র) রিপটন পুরকায়স্থের নেতৃত্বে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে অপরাধীদের অবস্থান সনাক্ত করেন। ওইদিন সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের সাভার বাজার শাখায় আব্দুল লতিফ সাহেবের নিকট দাবীকৃত আরো ১ লক্ষ টাকা উত্তোলনের সময় চাঁদাবাজ বাবুলকে গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী সাভারস্থ বাসায় তল্লাশী করে আরও ১৮টি সীম ও ০২টি মোবাইল সেট জব্দ করা হয় এবং ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহ অপর আসামী মোঃ জুয়েল মিয়াকে ঘটনায় ব্যবহৃত মোবাইল সেট ও সীমসহ গ্রেফতার করা হয়।
এ সংক্রান্তে গত ০৭ তারিখে আব্দুল লতিফ বাদী হয়ে থানায় আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। গত রোববার আসামী মাঈন উদ্দিন বাবুল নিজের দোষ স্বীকার করিয়া ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে। ঘটনার সাথে জড়িত অপর আসামীদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে অভিযান চলমান আছে বলে জানিয়েছেন উপ পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসা।

শেয়ার করুন