ইন্টারনেটে ভ্যাট-ট্যাক্স অব্যাহতি চায় অ্যামটব

23195_unnamed22222222ডেস্ক রিপোর্ট ।। বর্তমানে দেশের মাত্র ১৮ শতাংশ লোক ইন্টারনেট ব্যবহার করে। যদিও কার্যকরি সংযোগ রয়েছে ৬ কোটি ৭২ লাখ। আর মোবাইল ফোন ব্যবহার করে ৫৪ শতাংশ মানুষ। অর্থাৎ মোট সংযোগের মধ্যে সচল আছে ১৩ কোটি। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারের উপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ৫ শতাংশ ট্যাক্স এবং এক শতাংশ সারচার্জ রয়েছে। এই ভ্যাট-ট্যাক্স ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের অন্তরায় হিসেবে কাজ করছে। তাই এটি প্রত্যাহার করা উচিত।

মঙ্গলবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সঙ্গে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের প্রাক-বাজেট আলোচনায় এমনই দাবি করেছে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব। মোবাইল অপারেটরদের প্রধান নির্বাহী এবং অন্যান্য অপারেটরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও এই আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন।

এ নিয়ে সংগঠনটির মহাসচিব টিআইএম নূরুল কবির বলেন, ‘মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে সরকারকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করছে। ইন্টারনেটের উপর আরোপিত ভ্যাট-ট্যাক্স এক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায়। এই অন্তরায় রেখে ২০২১ সালের মধ্যে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ ভিশন বাস্তবায়ন সম্ভব নয়।’

আলোচনায় অ্যামটবের পক্ষ থেকে ইন্টারনেটের উপর ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহারের পাশাপাশি নতুন করে কোনো খাতে আর ভ্যাট-ট্যাক্স যুক্ত না করা এবং সিম ও রিম কার্ডের উপর থাকা ১০০ টাকা ট্যাক্স প্রত্যাহার করার দাবি তোলা হয়েছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে সরকারের বেশকিছু অমিমাংসিত বিষয় উঠে আসে এই আলোচনায়। এছাড়াও ব্যবহারকারীদের আরও কম মূল্যে ভয়েজ ও ইন্টারনেট ডাটা ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে হলে অপারেটরদের আরও কিছু তরঙ্গ বরাদ্দ দেয়ার বিষয়টি বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এনবিআরের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

অ্যামটবের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান বলেন, ‘এনবিআর রাজস্ব আহরণে কাজ করে। ব্যবসা, বিনিয়োগ বান্ধব ও ভোক্তাদের কথা মাথায় রেখে তারা বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়। এরই অংশ হিসেবে বিভিন্ন সেক্টরের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চলছে। অ্যামটবের দাবিগুলো বিবেচনায় এনে তা বাজেট প্রস্তাবে যোগ করা হবে।

শেয়ার করুন