কেমুসাস রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করতে চাই না ॥ প্রফেসর আব্দুল আজিজ

kemusas picসিলেটের সকাল রিপোর্ট:কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সভাপতি প্র্রবীন শিক্ষাবিদ প্রফেসর আব্দুল আজিজ বলেছেন, কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ একটি ঐতিহাসিক প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠান তার সুদীর্ঘ ৮০ বছরে অনেক উত্থান ও পতনের মাধ্যমে অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে। মানুষের বয়স বাড়লে বয়োজ্যেষ্ঠ হয় আর প্রতিষ্ঠানের বয়স বাড়লে হয় সমৃদ্ধ। মাত্র ১৬টি বই নিয়ে এই প্রতিষ্ঠানের যাত্রা হলেও বর্তমানে তা অর্ধ লক্ষেরও বেশি বই ধারণ করছে। আমাদের এই মুসলিম সাহিত্য সংসদ কর্মক্ষেত্রে অসাম্প্রদায়িক। আমরা এর নামকরণ ঠিক রেখেই ব্যাপক পরিবর্তন আনতে পারি। লাইব্রেরী একটি মহাসাগরের মতো। আমাদেরকে সেই সাগর থেকে জ্ঞান আহরণ করতে হবে।
দেশের অন্যতম প্রাচীন সাহিত্য প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের ৭৯ বর্ষের বার্ষিক সাধারণ সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যে সাড়ে ৬টায় নগরীর দরগাহ গেইটস্থ শহীদ সোলেমান হলে এ বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
তিনি আরো বলেন, সংসদ রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহৃত হোক তা আমরা চাই না, আমরা চাই সংসদ সবার জন্যে উন্মুক্ত থাকবে। আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী কোন কাজকে সংসদের পক্ষ থেকে সমর্থন করা হবে না।
কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক এডভোকেট আব্দুস সাদেক লিপনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রবীণ শিক্ষাবিদ অধ্যাপক বিজিত কুমার দেব। সাধারণ সম্পাদকের প্রতিবেদন পেশ করেন কেমুসাস সহ-সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী। আয়-ব্যয়ের হিসাব, অডিট রিপোটর্, প্রস্তাবিত ২০১৫-এর বাজেট পেশ করেন কোষাধ্যক্ষ ছয়ফুল করিম চৌধুরী হায়াত। সভায় শোক প্রস্তাব পাঠ করেন কার্যকরী পরিষদ সদস্য সৈয়দ মোহাম্মদ তাহের। বিগত সাধারণ সভার কার্যবিবরণী পাঠ করেন পাঠাগার সম্পাদক প্রভাষক কবি নাজমুল আনসারী। সাহিত্য সংসদের সহসভাপতি কবি আবদুল বাসিত মোহাম্মদের পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় অন্যান্যের মধ্যে মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন সাহিত্য সংসদের সহসভাপতি আ.ন.ম. শফিকুল হক, গবেষক আবদুল হামিদ মানিক, কেমুসাসের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক মানিক। সভায় বরেণ্য চিত্রশিল্পী অরবিন্দু দাশগুপ্তকে কেমুসাস-এর সম্মানসূচক আজীবন সদস্য হিসেবে ঘোষণা করা হয়। অরবিন্দু দাশের পরিচিতি পাঠ করেন আহমদ মাহবুব ফেরদৌস।
সভায় উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন আফতাব চৌধুরী, রুহুল ফারুক, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী ইসমাইল, এডভোকেট আব্দুল মুকিত অপি, শফিকুর রহমান চৌধুরী, আব্দুস সামাদ নজরুল, লোকমান আহমদ, এডভোকেট কয়ছর আহমদ, বাদশাহ গাজী, প্রিন্স ছদরুজ্জামান, সেলিম আউয়াল, মাওলানা খলিলুর রহমান, হুসনে আরা কলি, সাইদুর রহমান, ফায়জুর রহমান, অধ্যক্ষ ফয়জুল হক, মুহম্মদ তাজুল ইসলাম, আবদুল মালিক, ছদরুল আলম চৌধুরী, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, এখলাছুর রহমান, বদরুজ্জামান কামাল, এডভোকেট গোলাম রাজ্জাক চৌধুরী, মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম, সৈয়দ মবনু প্রমুখ।

স্বাগত বক্তব্যে অধ্যাপক বিজিত কুমার দেব বলেন, আমাদেরকে সবসময় সত্যের পথে চলতে হবে। এজন্য আমাদেরকে সেই সত্যকে ধরে রাখতে হবে। সাহিত্য সংসদ তার সুচনার দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে আজ ৮০ বছরে পদার্পন করলো। আমরা এরজন্য খুব গর্ববোর্ধ করছি।
সভায় ৭৮লাখ টাকার বাজেট, বিগত সভার কার্যবিবরণী, আয়ব্যয়ের হিসাব অনুমোদন করা হয়।

শেয়ার করুন