বাংলাদেশ-ভারত ভূমি জরিপ শুরু

news_img (1)সিলেটের সকাল : ‘অপদখলীয় জমির’ সীমানা চিহ্নিত করতে বাংলাদেশ ও ভারত ভূমি জরিপ শুরু করেছে। ভূমির সীমানা চিহ্নিত করে সেখানে পিলার স্থাপন করতেই এ জরিপ শুরু হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার ভারতের ইংরেজি দৈনিক দ্য হিন্দুতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, জরিপের কাজে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ি জেলার বিতর্কিত অঞ্চল দক্ষিণ বেরুবাড়িতে পৌঁছেছেন সার্ভে অব ইন্ডিয়ার কর্মকর্তারা। ভবিষ্যতে সীমানা নিয়ে বিতর্ক এড়াতে দ্রুতই সেখানে পিলার স্থাপনের কাজ শুরু হবে। এর ফলে ১৯৪৭ সালের দেশভাগের সময় ব্রিটিশ আইনজীবী সিরিল জন র্যা ডক্লিফ ভুল করে জলপাইগুড়ি জেলার একটি থানা বাদ দেওয়ায় যে মানবিক সংকট সৃষ্টি হয়েছিল, তার অবসান হবে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ ও ভারত গত জুন মাসে ২০১১ সালের প্রটোকলের ভিত্তিতে বিরোধ নিষ্পত্তিতে সম্মত হয়। প্রটোকল বিরোধপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করেছে এবং ২০১৫ সালের চুক্তির ভিত্তিতে ২০১৬ সালের মধ্যে মাঠপর্যায়ে সীমানা চিহ্নিতকরণের কাজ শেষ করা হবে। চুক্তি অনুযায়ী দক্ষিণ বেরুবাড়ির গ্রামগুলোতে সীমানা চিহ্নিতকরণ শুরু হয়েছে গত সপ্তাহে। জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বিশ্বনাথ চক্রবর্তীর নেতৃত্বে সার্ভে অব ইন্ডিয়ার কর্মকর্তারা দুই দেশের সীমান্তরক্ষীদের নিয়ে ওই গ্রামে পৌঁছান এবং জরিপের কাজ শুরু করেন।
কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে প্রতিবেদনে বলা হয়, বেরুবাড়ি সীমান্তে ১০টি মূল পিলার ও ১১০টি সহায়ক পিলার স্থাপন করা হবে। দক্ষিণ বেরুবাড়ি পঞ্চায়েতের পাঁচটি গ্রামে এবং পার্শ্ববর্তী অপর পঞ্চায়েত নগর বেরুবাড়ির আন্তর্জাতিক সীমান্তে পিলারগুলো বসানো হবে।
এ বছরে দুই দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী সব ধরনের সীমানা চিহ্নিতকরণ আগামী বছরের জুন মাসের মধ্যে শেষ হবে।

শেয়ার করুন