দিরাইয়ে বোনকে হত্যার দায়ে ভাই গ্রেফতার

articleদিরাই সংবাদদাতা : দিরাইয়ে আপন বোন সালমা বেগম (২৫) হত্যার দায়ে গ্রেফতার করা হয়েছে বড় ভাই মোশাহিদকে (২৮)। হত্যার কথা স্বীকার করায় সোমবার তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে এবং আদালতের নির্দেশক্রমে লাশ উত্তোলনের ব্যবস্থা করা হবে।

এ ঘটনায় শোকে কাতর হয়ে গেছেন পরিবারের একমাত্র ব্যক্তি পিতা ডাঃ আজিজুর রহমান। প্রায় ৪ মাস আত্মগোপনে থাকার পর দিরাই থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর থেকে তাকে গ্রেফতার করে।
মোশাহিদের পিতা আজিজুর রহমান জানান, প্রায় ৪ মাস আগে বাড়িতে গিয়ে মেয়েকে না পেয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করা হলে মোশাহিদ জানায়, খোঁজ করে দেখ; আমিও দেখছি। এরপর অনেক খোঁজ নিয়ে মেয়েকে না পেয়ে অবশেষে দিরাই থানায় একটি জিডি করি। জিডি নং-৯৭২, তারিখ-২৪/০৮/২০১৫ খ্রিস্টাব্দ। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এ ঘটনার পর পুলিশ তাকে আটক করলেও মেয়েকে বের করে দেয়ার শর্তে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দিয়েছে বলেও জানান। তারপর থেকে আর কোন সন্ধান পাইনি মোশাহিদের।
জানা যায়, সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার পৌরসভার ভরারগাঁও গ্রামের গ্রাম্য ডাক্তার ও দিরাই বাজারের ব্যবসায়ি আজিজুর রহমানের পরিবারে দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক বিরোধ চলছে। তার এক মেয়ে সালমা বেগমকে একই গ্রামের সুমন মিয়ার সাথে বিয়ে দেন প্রায় ৫ বছর আগে। তবে বেশি দিন সংসার করতে পারেনি সালমা। স্বামীর সাথে বনিবনা না হওয়াতে তালাক নিয়ে পিত্রালয়ে চলে আসে। এরপর থেকেই পিতার সংসারে মরিয়ম জাহান মিম (৩) নামে ৩ বছরের একটি মেয়েকে নিয়ে বসবাস করে আসছে।
আজিজুর রহমান জানান, প্রায় দেড়বছর আগে মোশাহিদকে জেলার ছাতক উপজেলার জাউয়া এলাকার একটি গ্রামে পারিবারিকভাবে বিয়ে করান। গত কয়েকদিন আগে পুত্রবধুর পিতার বাড়িতে একটি মেয়ে সন্তানও হয়েছে। তিনি আরো জানান, পরবর্তীতে সে আরেকটি বিয়ে করেছে আমাদেরকে না জানিয়ে। আমরা তা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারিনি বলে আমার মেয়ের সাথে প্রায়ই ঝগড়া করতো।
সূত্র মতে, একমাত্র ছেলে মোশাহিদ মিয়াও তার পিতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দিরাই বাজারের জমজম হোটেলের সামনে একটি দোকানে পিতার সঙ্গে ব্যবসা করতো। গত ঈদুল ফিতরের আগে তার মাতা মারা যাওয়ায় বাড়ি একেবারে খালি থাকায় সে এটিকে সুযোগ বুঝেই বোনকে হত্যার পরিকল্পনা করে। তবে সে একা না আরো কেউ তার সাথে ছিল, রিমাণ্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসা করলেই তা বেরিয়ে আসবে বলে এলাকাবাসি দাবি করেন। এ ঘটনায় এলাকায় চলছে শোতের মাতম।
দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিছুর রহমান জানান, মোশাহিদের পিতার আবেদনের প্রেক্ষিতে তদন্ত করে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে ঢাকার গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ ব্যাপারে একটি মামলা দায়ের করেছেন আজিজুর রহমান। মামলা নং-০৩, তারিখ-০৬/১২/২০১৫ খ্রিস্টাব্দ। তিনি আরো জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে বোন হত্যার কথা স্বীকার করায় সোমবার তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে এবং আদালতের নির্দেশক্রমে লাশ উত্তোলনের ব্যবস্থা করা হবে।

শেয়ার করুন