শিশু সাঈদ হত্যায় চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

Syed-sylhet20151116090318সিলেটের সকাল : শিশু আবু সাঈদকে অপহরণ ও হত্যা মামলায় চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। তারা হচ্ছেন, নগরীর বিমানবন্দর থানার কনস্টেবল (বরখাস্ত) এবাদুর রহমান পুতুল, র‌্যাবের কথিত সোর্স আতাউর রহমান গেদা, সিলেট জেলা ওলামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব ও প্রচার সম্পাদক মাহিব হোসেন মাসুম।

মঙ্গলবার সিলেট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আব্দুর রশিদ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। ওই আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আব্দুল মালেক এই তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, আগামী ১৯ নভেম্বর থেকে এই মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ধার্য্য করেছেন আদালত। সোমবার সাঈদ অপহরণ ও হত্যা মামলায় অভিযোগ গঠনের তারিখ ধার্য্য করেন আদালত।

আদালত সূত্র জানায়, গত ২৩ সেপ্টেম্বর এই মামলায় সিলেট মহানগর হাকিম ১ম আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মহানগর পুলিশের সহকারি কমিশনার (প্রসিকিউশন) আবদুল আহাদ চৌধুরী। মামলাটি তদন্ত করেন কোতোয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোশাররফ হোসাইন। ওই অভিযোগপত্রে এই চারজনকে অভিযুক্ত করা হয়। ৭ অক্টোবর অভিযোগপত্রের উপর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ১১ মার্চ সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সিলেট নগরীর রায়নগর থেকে স্কুলছাত্র আবু সাঈদকে (৯) অপহরণ করা হয়। এরপর ১৩ মার্চ রাতে বিমানবন্দর থানার পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান পুতুলের কুমারপাড়াস্থ ঝর্ণারপাড় সবুজ-৩৭ নং বাসার ছাদের চিলেকোঠা থেকে সাঈদের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় বিমানবন্দর থানার কনস্টেবল এবাদুর, র‌্যাবের সোর্স গেদা ও ওলামা লীগ নেতা রাকিবকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এই তিনজনই আদালতে স্বীকারোক্তি প্রদান করে। সর্বশেষ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পর আদালতে আত্মসমর্পণ করেন ওলামালীগ নেতা মাসুম। বর্তমানের অভিযক্ত এই চার আসামি সিলেট কারাগারে বন্দি রয়েছেন।

শেয়ার করুন